Quantcast

আসওয়ান, মিশর

আসওয়ান হল মিশরের সবচেয়ে রৌদ্রজ্জ্বল দক্ষিণী শহর

স্বতন্ত্র আফ্রিকান বাতাবরণের সঙ্গে আসওয়ান হল মিশরের সবচেয়ে রৌদ্রোজ্জ্বল দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর। নীল উপত্যকায় অবস্থিত শহরটিকে অসাধারণ দেখায়। আসওয়ান, পায়ে হেঁটে অন্বেষণ করার জন্য যথেষ্ট ছোট; জীবনের গতি ধীর এবং শিথিল। সৌক বা স্থানীয় বাজারগুলি মশলা এবং পারফিউমের গন্ধ ও বর্ণে পরিপূর্ণ, এর সঙ্গে রয়েছে সুন্দর আফ্রিকান হস্তশিল্প, নুবিয়ান হস্তনির্মিত দ্রব্য, সূদানের তলোয়ার, বেদুইন হস্তনির্মিত কার্পেট-যা আসওয়ানের পূর্বকালীন চারুতাকে বৃদ্ধি করে।

আসওয়ান-এ দর্শনীয় স্থান

নুবিয়ান মিউজিয়াম : একটি পাহাড়ের উপরে অবস্থিত, নুবিয়ান মিউজিয়াম 3,000 প্রাচীন নিদর্শন প্রদর্শিত করে, যা নুবিয়ান সংস্কৃতি ও সভ্যতার ক্রমবিকাশের পর্বকে প্রতিফলিত করে; সেইসঙ্গে তার ফারাওনিক এবং রোমান যুগের প্রভাবকেও তুলে ধরে। ইউনেস্কো-র আন্তর্জাতিক প্রচারাভিযানের একটি অংশ হিসাবে প্রতিষ্ঠিত, মিউজিয়ামটিতে পূর্ণাবয়ব প্রদর্শনীর একটি পরিসীমার সঙ্গে নুবিয়ান জীবনের দৃশ্য বর্ণিত রয়েছে।
দ্বার-মুক্ত প্রদর্শনীর মধ্যে 90-টি হস্তনির্মিত মনুমেন্ট রয়েছে। অন্যদিকে সভাটিতে প্রায় 50-টি প্রাক-ঐতিহাসিক হস্তনির্মিত বস্তু এবং অন্যান্য নিদর্শনের মধ্যে ফারাওনিক যুগ, কোপটিক যুগ, ইসলামিক যুগ, নুবিয়ান যুগ এবং শহরটির ইতিহাসও অন্তর্ভূক্ত রয়েছে। এছাড়াও যাদুঘর বা মিউজিয়ামটিতে একটি লাইব্রেরি এবং নুবিয়ান পুরাতত্ত্ব, ইতিহাস ও সংস্কৃতির ওপর একটি গবেষণা ও নথিপত্র কেন্দ্রও আছে। পার্শ্ববর্তী বাগানগুলিতে প্রাচীন নিদর্শনের বৈশিষ্ট্য রয়েছে। নীল নদের প্রতিনিধিত্বমূলক একটি জলপথ, প্রাক-ঐতিহাসিক যুগের দেওয়াল খোদিত একটি গুহা ও একটি নুবিয়ান গৃহ রয়েছে।

এলিফ্যান্টাইন আইল্যান্ড : অন্যতম বৃহৎ দ্বীপ, এলিফ্যান্টাইন হল প্রাক-রাজবংশীয় যুগের প্রাচীন হস্তনির্মিত দ্রব্যের নিদর্শনসহ মিশরের সবচেয়ে এক প্রাচীনতম স্থান। যদিও এই সুন্দর দ্বীপটিতে হস্তনির্মিত নিদর্শনের অধিকাংশই ধ্বংসাবশেষ অবস্থায় রয়েছে, তবুও সেখানে দেখার জন্য অনেক কিছু রয়েছে। এই তালিকার মধ্যে সবচেয়ে উপরে আছে নীলোমিটার, যা ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষ পর্যন্ত নীল নদের জলের স্বচ্ছতা এবং সমস্ত দিক দিয়ে তার বার্ষিক বন্যার স্তর পরিমাপের জন্য ব্যবহার করা হত। এছাড়াও এখানে অষ্টাদশ রাজবংশের রাণী হাতশেপসুত-এর সমাধিস্থ মন্দিরও রয়েছে, যা ড’জেসার-ড’জেসেরু (Djeser-djeseru) নামে অভিহিত ছিল, যার অর্থ হল প্রাচীনকালের “পবিত্রতার পবিত্র”। এছাড়াও মন্দিরটিতে আনূবিশ ও হাথোরের প্রার্থনা গৃহ, সেনেনমূটের সমাধি, আমুন-এর আশ্রয়স্থল, জন্মের স্তম্ভসারি ও পান্ট স্তম্ভশ্রেণীর বৈশিষ্ট্যযুক্ত রয়েছে।

আগা খান-এর সমাধি বা মৌসোলিয়াম : এটি হল মহম্মদ শাহ আগা খান-এর মৌসোলিয়াম, যিনি ইসলামীয়দের, শিয়া উপদলের 48-তম ইমাম, আধ্যাত্মিক নেতা ছিলেন। 1950 সালের শেষের দিকে নির্মিত, দরগা বা মৌসোলিয়ামটি হল একটি অত্যন্ত মার্জিত সৌন্দর্যমন্ডিত গোলাপী গ্রানাইট পাথরের গঠন কাঠামো। মৌসোলিয়ামটি সেন্ট শিমিয়োনের আশ্রম ও নীচে আগা খানের সাদা ভিল্লা-র এক চমৎকার দৃশ্য উপলব্ধ করায়। এর অভ্যন্তরীণ অংশটি হালকা রঙে রঞ্জিত করা হয়েছিল এবং মেঝেগুলি লাল কার্পেটে সুসজ্জিত ছিল, যা পরিপাটিভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করা হত। আগা খান-এর ভাস্কর্যশিল্পঅলংকৃত শিলালিপিসমন্বিত প্রস্তর শবাধারটি, কোরাণ অক্ষরে পরিত্রাণের দিনাঙ্ক খোদাইয়ের সঙ্গে সাদা মার্বেল দ্বারা নির্মিত হয়। বেগম (তাঁর স্ত্রী)-এর নির্দেশে, ভাস্কর্যশিল্পঅলংকৃত শিলালিপিসমন্বিত প্রস্তর শবাধারটির ওপর প্রতিদিন একটি করে সতেজ লাল গোলাপ অর্পন করা হত – এই ঐতিহ্যগত প্রথা আজও অব্যাহত রয়েছে।

সেন্ট শিমিয়োনের আশ্রম : সপ্তম শতাব্দীতে প্রতিষ্ঠিত আশ্রমটি, অনবা হাত্রে নামে পরিচিত, চতুর্থ শতাব্দীর সন্ন্যাসীর প্রতি উৎসর্গীকৃত, যিনি নুবিয়াদেরকে খ্রীস্টান ধর্মে রূপান্তরণের আশা নিয়ে আসওয়ানে এসেছিলেন। 1173 খ্রীষ্টাব্দে সালাহউদ্দিন সৈন্যদের দ্বারা ধ্বংসীভূত, এই ধ্বংসপ্রাপ্ত আশ্রমটি নীল নদের পশ্চিম তীরে অবস্থিত। সুবিশাল প্রাচীর দ্বারা বেষ্টিত ভবনটি দু’টি স্তরে নির্মিত – বুনিয়াদটি পাথর এবং ওপরটি কাদার ইঁট দিয়ে তৈরী। প্রাচীর বরাবর, বেশ কয়েকটি ধসে পড়া টাওয়ার রয়েছে। অভ্যন্তরে মাসতাবা (বেঞ্চ বা ন্যায়াসন) সহ একটি ছোট গির্জা রয়েছে। যদিও বাসিলিকা বা রাজপ্রাসাদটি ভেঙে পড়েছে, তবুও বিগ্রহ বা মূর্তি এবং অঙ্কিত চিত্রাঙ্কনগুলি এখনও প্রতীয়মান রয়েছে। ঈশ্বরের বাণী প্রচারক ও স্বর্গদূতদের দেওয়াল চিত্র এবং অন্যান্য শৈল্পিক কারুকার্যগুলি এক স্বতন্ত্র বাইজেন্টাইন শৈলীতে রয়েছে। এছাড়াও মক্কা যাওয়ার পথে আশ্রমে থাকা, মুসলিম তীর্থযাত্রীদের দ্বারা একটি সংলগ্ন কক্ষে গ্রাফিটি বা দেওয়াল চিত্রও রয়েছে।

আসওয়ান হাই ড্যাম : আসওয়ান হাই ড্যাম বা আসওয়ান উচ্চ বাঁধটি হল শহরের একটু দক্ষিণে স্থিত, নীলনদের উপর এক সুবিশাল পরিকাঠামো। গ্রেট পিরামিডের নির্মাণ সম্পূর্ণ করতে যা সামগ্রী প্রয়োজন হয়েছিল, এই বাঁধটির নির্মাণে তার চেয়ে 18 গুণ বেশি নির্মাণসামগ্রী লেগেছিল এবং এটি বিংশ শতাব্দীর শেষের দিকের সবচেয়ে এক অন্যতম বিশিষ্ট প্রাকৌশলিক বা ইঞ্জিনীয়ারিং কৃতিত্ব হিসাবে বিবেচনা করা হয়। আসওয়ান হাই ড্যাম, মিশরীয় ও সেইসাথে বিদেশী ভ্রমণার্থীদের জন্য একটি দুর্দান্ত আকর্ষণ। এটা পার্শ্ববর্তী এলাকার দর্শনীয় দৃশ্য উপলব্ধ করায় এবং সেইসঙ্গে এক সুবিশাল কৃত্রিম হ্রদে ভ্রমণার্থীরা বিনোদনমূলক কার্যক্রমও উপভোগ করতে পারেন।

অসমাপ্ত স্মৃতিস্তম্ভ :বৃহত্তম প্রাচীন স্মৃতিস্তম্ভ রূপে পরিচিত, এই “অসমাপ্ত” স্মৃতিস্তম্ভটি নর্দান কূয়্যেরী (উত্তরাঞ্চলীয় খাদ)-তে অবস্থিত। পাথর থেকে এটিকে কাটার সময় এখানে একটি ফাটল আবিষ্কার হওয়ায়, এই স্মারকস্তম্ভের নির্মাণকার্য পরিত্যক্ত করা হয়। এটি সম্পন্ন হলে, এটির ওজন 2.3 মিলিয়ন পাউণ্ড হবে এবং এট বিশ্বের বৃহত্তম স্মারকস্তম্ভ হয়ে উঠবে। স্মৃতিস্তম্ভটির উপর চিসেল (বাটলি, ছেনি)-এর চিহ্ন হল প্রত্নতাত্ত্বিকদের আগ্রহের একটা বিরাট উৎস, কারণ তারা এই মিনারটি কিভাবে তৈরি করা হয়েছিল তার উপর একটি অন্তর্দৃষ্টি প্রদান করেন।

হোটেল

কিলেনী হোটেল এবং নূবা নীল হোটেল হল বাজেট ভ্রমণার্থীদের জন্য অসাধারণ, অন্যদিকে মাঝারি-মানের ভ্রমণার্থীরা অবশ্যই এল.টি.আই.- পীরামিসা আইসিস আইল্যান্ড রিসর্ট আ্যন্ড স্পা এবং মারহাবা প্যালেস হোটেলে থাকাটা উপভোগ করবেন। উচ্চাভিলাষী ভ্রমণার্থীরা সোফিটেল লেজেন্ড ওল্ড ক্যাটারাক্ট আসওয়ান এবং মোভেনপীক রিসর্ট আসওয়ানে গিয়ে দেখতে পারেন।

আসওয়ান মানচিত্র

আসওয়ান সম্পর্কে তথ্যাবলী

  • শহরের নামটি, প্রাচীন মিশরীয় শব্দ “সৌন” থেকে উৎপত্তি হয়েছে, যার অর্থ হল বাণিজ্য।
  • লাক্সারে স্মৃতিস্তম্ভগুলির অধিকাংশই, আসওয়ানের গ্র্যানাইট শিলা থেকে উৎপত্তি লাভ করেছে।
  • আসওয়ান বাঁধের নির্মাণের পর, নীল নদের বার্ষিক বন্যা পরিস্থিতিকে স্থগিত করা গেছে।

আসওয়ান কোথায় অবস্থিত?

আসওয়ান, মিশরের দক্ষিণে, আসওয়ান বাঁধ ও লেক নাসেরের আগে অবস্থিত। এটি কায়রো থেকে প্রায় 899 কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থিত।

পৌঁছানোর উপায়

বিমান মাধ্যমে আসওয়ান আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরটি, শহরের কেন্দ্র থেকে প্রায় 24 কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। গাড়ির মাধ্যমে পৌঁছাতে প্রায় আধ ঘন্টার মতো সময় লাগে।

রেল মাধ্যমে আসওয়ান রেলওয়ে স্টেশন হল শহরের প্রধান রেল স্টেশন।

নৌকা মাধ্যমে

ফেলুক্কা নামে অভিহিত, ঐতিহ্যবাহী কাঠের পালতোলা নৌকার দ্বারাও এই শহরটি পরিদর্শন করা সম্ভব। দ্রুতগতির পাওয়ারবোটগুলিও ভাড়া করতে পারেন; তবে, ঐগুলি সাধারণত ফেলুক্কাগুলির তুলনায় অনেক বেশি ব্যয়বহুল।

আসওয়ান পরিদর্শনের সেরা সময়

শহরটি পরিদর্শনের সেরা সময় হল মে থেকে সেপ্টেম্বরের মধ্যবর্তী সময়।

আসওয়ান সম্পর্কিত আরোও তথ্য

আসওয়ান-এর জলবায়ু কি প্রকৃতির?
আসওয়ান-এ একটি মরুভূমি জলবায়ু রয়েছে এবং সমগ্র মিশরে সবচেয়ে এক উষ্ণতম তাপমাত্রা অনুভূত হয়। গ্রীষ্মকালে, তাপমাত্রা সাধারণত 40° C (ডিগ্রী সেন্টিগ্রেড)-এরও ওপরে থাকে।

আসওয়ান এবং লাক্সারের মধ্যবর্তী দূরত্ব কি?

আসওয়ান এং লাক্সারের মধ্যবর্তী দূরত্ব হল প্রায় 214 কিলোমিটার। গাড়ির মাধ্যমে যেতে প্রায় তিন ঘন্টার একটু বেশি সময় লাগে।

* সর্বশেষ সংযোজন : December 08, 2015

Published On: Tuesday, December 8th, 2015