Quantcast

রোটাং গিরিপথ, হিমাচল প্রদেশ

রোটাং পাস-এ ভ্রমণার্থীরা তুষার ক্রীড়া উপভোগে মগ্ন

রোটাং গিরিপথ, কুলু উপত্যকাকে, স্পিতি ও লাহুল-এর সঙ্গে সংযুক্ত করেছে। এটি পীরপাঞ্জল পর্বতমালার উপর অবস্থিত এবং রোটাং গিরিপথের মধ্য দিয়ে 21-নং জাতীয় সড়ক অতিক্রম করেছে। গিরিপথটি, পাঞ্জি ও লেহ উপত্যকার মধ্যে সংযুক্তিকরণ হিসাবেও পরিষেবিত হয়। ইংরাজীতে অনুবাদ করলে, রোটাং নামটির অর্থ দাঁড়ায় “মৃতদেহের ভান্ডার” – যা মৃ্ত্যুকে ইঙ্গিত করে; যা এই গিরিপথে ঘটেছে।

রোটাং পর্যন্ত সড়ক

মানালি থেকে রোটাং গিরিপথ প্রায় 51 কিলোমিটর দূরে অবস্থিত। রোটাং পৌঁছানোর জন্য পর্যটকেরা ক্যাব ভাড়া নিতে পারেন। ট্রাফিক ঝঞ্জাট এড়ানোর জন্য এগুলি খুব ভোরে ছেড়ে দেয়। একটু যদি দেরিতে শুরু করেন, তাহলে আপনি ঘন্টা খানেকের জন্য আটকে পড়বেন, দেখে মনে হবে মাইলের পর মাইল ধরে অসীম গাড়ি লেগে আছে। ধ্বস, ট্র্যাফিক জ্যাম, উচ্চতর উচ্চতায় অসুস্থতার প্রতিবন্ধকতা সত্ত্বেও রোটাং গিরিপথ প্রতি বছর প্রায় আড়াই কোটি পর্যটকদেরকে আকৃষ্ট করে। পরিণত পর্বতারোহীদের জন্য রোটাং সফরভ্রমণ হল কেকের উপর চেরির ন্যায়। এমনকি বাকিদের জন্য, যাদের শারীরিক অসুস্থতা, এই ধরনের এক শ্রমসাধ্য যাত্রার অনুমতি দেয় না, তারাও শুধুমাত্র কুলু পর্যন্ত একটি ভ্রমণের পরিকল্পনা নিত পারেন, যা রোটাং ব্যতীত তুষার-পরিহিত শৃঙ্গ পরিদর্শনের প্রস্তাব দেয়; যা স্বচ্ছ কাঁচের দরজার মাধ্যমে স্বর্গের দিকে তাকিয়ে আছি বলে মনে হবে এবং কখনও দরজার খিড়কির হাতল ঘুরিয়ে ফেরৎ আসতে ইচ্ছে করবে না।

রোটাং গিরিপথের কাছে গেলে, সবুজের লক্ষণ ধীরে ধীরে উধাও হতে শুরু করে। খাড়া অনাবৃত পর্বতের ধার কেটে বেষ্টিত সড়কই সকলের চোখে পড়ে। রোটাং-এর 16 কিলোমিটার আগে রয়েছে মারহি – রোটাং গিরিপথে পৌঁছানোর আগে শেষ শহর। এখানে, সমস্ত বাস ও গাড়িগুলি তাদের চলার পথে গিরিপথে থামে। ক্ষুদ্র রাস্তার পাশে খুপরিতে চা ও স্ন্যাকস বিক্রী হয়, তারা পথের পাশে প্রাণবন্তভাবে ব্যবসা করে চলেছেন। মারহি হল প্যারাগ্ল্যাইডারদের জন্য অসাধারণ স্থান। সদা-পরিবর্তনশীল আবহাওয়া ও খাড়া পাহাড়, প্যারাগ্ল্যাইডিং-কে এখানে আরোও চ্যালেঞ্জিং করে তোলে।

কোট, বুট ও লাঠি – ভাড়া

মারহি-তে বিভিন্ন দোকানগুলি উষ্ণ পরিধেয় পোশাক ভাড়া দেয় এবং পর্বতে আরোহণও সহজ হয়ে ওঠে। এটি কোনও অতিসরল পর্যটকদের ঠকিয়ে নেওয়ার কোনও ষড়যন্ত্র নয়। রোটাং গিরিপথের উপর ভারী কোট ও বুট পরিধান করাটাও আবশ্যক। তা নাহলে এই ধরনের একটি সুন্দর উচ্চতায় সুখানুভব স্বল্পকাল স্থায়ী হবে। সঠিক পদ্ধতিতে পোশাক-আশাক না পরলে, এখানকার শীতলতা শীঘ্রই একজন ব্যাক্তির অসাড়তা ও ব্যথা ভেতর থেকে শুষে নেবে।

ট্র্যাফিক 16 কিলোমিটার প্রসারণ সহ ব্যাপ্ত রয়েছে, যা এখান থেকে রোটাং গিরিপথ পর্যন্ত পৌঁছায়। এখান থেকে ধৈর্য্যের পরীক্ষা শুরু হয়। দ্বন্দময় খাড়াই অনিশ্চিত রাস্তা এবং যানবাহনের একটি নাছোড় প্রবাহের কথা চিন্তা করেই, অনেক ভ্রমণকারীরা ধৈর্য্য হারিয়ে ফেলেন বা হতে পারে তাদের স্নায়ু সাথ দেয় না।

পরিদর্শকদের মেঘ বিস্ফোরণের ন্যায় আরেকটি বিপদ সম্পর্কে সতর্ক করা প্রয়োজন। এলাকার কুয়াশাচ্ছন্ন আবহাওয়া হঠাৎ করে ঝড়বৃষ্টি প্রবণ হয়ে ওঠে, যা ইতিমধ্যেই কঠিন ভূ-খন্ডকে পাড়ি দেওয়ার জন্য আরোও অসম্ভব করে তোলে।

রোটাং গিরিপথে পৌঁছানো

রোটাং গিরিপথ কঠিনীভূত তুষারের একটি ক্ষেত্র। এখানে সতেজ তুষারপাতও হয়। অল্পবয়সী ব্যক্তিরা রাস্তায় ঝাঁপাঝাঁপি শুরু করে যা লেহ পর্যন্ত বর্ধিত রয়েছে। বেশ কিছু দূরত্বের জন্য অনেকে পাহাড়ে চড়াই করে। তবে অনেকেরই শ্বাসপ্রশ্বাসে সমস্যা হতে পারে। 3980 মিটার উচ্চতর উচ্চতায়, অঘনীভূত বায়ুতে অনভ্যস্তদের শ্বাস নেওয়া দুরুহ হয়ে উঠতে পারে।

রোটাং গিরিপথে ক্রিয়াকলাপ

  • স্কিং ও স্ক্যোয়াড বাইকিং হল এখানে বেশ জনপ্রিয়। কিছু উচ্চাভিলাষী মানুষ স্নোম্যান (তুষার গঠিত মানবমূর্তি) তৈরী করে এবং বরফের দেওয়ালের উপর হৃদয়-আকারের খোদাই করে। রোটাং গিরিপথে আলোকচিত্রশিল্পীরা, ভ্রমণরত দম্পতিদের পশ্চাদ্ধাবন করেন এবং তাদেরকে এই তুষার-ভাস্কর্যের সামনে নিয়ে এসে ছবি তোলার জন্য প্রত্যয়িত করেন। এই ফটোগ্রাফার বা আলোকচিত্রশিল্পীরা পরের দিন আপনার হোটেলের ঠিকানায় ছবিগুলি প্রেরণ করেন।
  • সু-সজ্জিত চমরী গাই বা ইয়াক্ আরোহণ হল এখনো এখানকার আরেকটি আকর্ষণ। এরপর পথের দিকে ঘুরে বেড়াতে যা লেহ পর্যন্ত বর্ধিত রয়েছে, দর্শকরা পাহাড়ের পাদদেশে বিকশিত ক্ষুদ্র রঙিন ফুলও দেখতে পারেন, এগুলিকে দেখে মনে হয়, তারা ঘাসের অন্তর্নিহিত বিছানায় সঞ্চিত আছে – এই বেগুনী, হলুদ ও গোলাপী চ্যাম্পিয়নসগুলি – এই শীতলতম স্থানে গ্রীষ্মকালের আবছা বর্ণ ছড়ায় এবং প্রফুল্লতাকে উদ্দীপিত করে। যদিও শীতকাল এই সৌন্দর্য ছাড়াই দর্শিত হয়।

সূর্যাস্ত
সন্ধ্যে নামার সঙ্গে সঙ্গে, পর্বতের চূড়ার ওপর সুবর্ণ রশ্মি স্বচ্ছ বীণা বাজাতে থাকে, সাদা ক্ষেত্র বদলে যায়, তবে ক্ষণিকেই, একটি হালকা হলুদাভ তৃণভূমিতে ভরে ওঠে। একের পর এক, সমস্ত পর্যটক ট্যাক্সিগুলি ধীরে ধীরে মানালির দিকে রওনা দেয়।

রোটাং গিরিপথ ভ্রমণকারীদের জন্য উপদেশ

1. নিশ্চিতরূপে খুব ভোরের দিকে ভ্রমণ শুরু করার পরিকল্পনা করুন। একটু দেরি করে শুরু করার অর্থ হল স্নো পয়েন্ট থেকে বেশ কয়েক কিলোমিটার দূরে, অন্যান্য বিভিন্ন যানবাহনের পিছনে পার্কিং করা। বরফ জমা ঠান্ডার মধ্যে এই দুরত্ব হেঁটে যাওয়া অবশ্যই কোনও মনোরম কাজ নয়।

2. তুষারে পরিধেয় পোশাক, স্কি ও স্নো স্কুটারগুলির ভাড়া যাচাই করে নিন অথবা গিরিপথে যাওয়ার আগে একজন উপদেষ্টাকে ভাড়া করুন। তা নাহলে গাড়ির চালকের দ্বারা প্রতারিত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে, তারা স্থানীয় ভাড়া দেওয়া দোকানগুলির সঙ্গে চক্রান্তে লিপ্ত থাকে, যার ফলে আপনার অর্থ ব্যয়ের সম্ভাবনা থেকে যায়।

3. ভাড়া নেওয়া পোশাকের উপলব্ধতা সত্ত্বেও পশমী পোশাক; বিশেষ করে উষ্ণ অর্ন্তপরিধেয় পোশাক ও পশমী মোজা, বাঁদর-টুপি, দ্বি-স্তরীয় হাতমোজা ও বেশ কয়েকটি পশমী সোয়েটার নিয়ে যাওয়া নিশ্চিত করুন।

4. 13000 - ফুটেরও বেশি উচ্চতায়, রোটাং গিরিপথে উচ্চতাজনিত অসুস্থতা হতে পারে। কিছু জিনগত প্রবণতা বা কিছু শারীরিক অবস্থার জন্য ভ্রমণযাত্রা করা অনিরাপদ কিনা তা পরীক্ষা করুন।

5. উচ্চতায় অসুস্থতা উপশমের জন্য হাতের নাগালের মধ্যে ওষুধও রাখা যেতে পারে।

6. এটা পর্বতের আবহাওয়ার সঙ্গে নিজেকে সহানুভূতিশীল করে তোলার জন্য ধীরে ধীরে আরোহন একটি ভাল ধারণা। রোটাং গিরিপথের উদ্দেশ্যে অগ্রসর হওয়ার আগে, কয়েকটি দিন সিমলাতে এবং পরবর্তী কয়েকদিন মানালিতে নিবৃত্তির পরামর্শ দেওয়া হয়।

7. ডিহাইড্রেশন বা জলবিয়োজন এড়াতে প্রচুর জল পান করুন।

রোটাং গিরিপথ সম্পর্কে তথ্যাবলী

  • গিরিপথটি শুধুমাত্র দুটি অঞ্চলকেই সংযুক্ত করে নি, বরঞ্চ দুটি সংস্কৃতিকেও সংযুক্ত করেছে। কুলু উপত্যকা হল হিন্দু অধ্যূষিত অঞ্চল, অন্যদিকে লাহুল ও স্পিতি উপত্যকা বৌদ্ধ সম্প্রদায় দ্বারা অধ্যূষিত।
  • বিপাশা নদী গিরিপথটির দক্ষিণ দিকে উদ্ভূত হয়েছে এবং দক্ষিণাভিমুখে প্রবাহিত হয়ে গেছে। চন্দ্র নদী উত্তর অভিমুখে প্রবাহিত হয়েছে।
  • রোটাং গিরিপথ প্রাচীন কালে একটি বাণিজ্যিক পথ হিসেবে ব্যবহৃত হত।
  • রোটাং গিরিপথের নীচে একটি 8.8 কিলোমিটার সুড়ঙ্গ নির্মাণ চলছে। যদিও এতে স্পষ্টতই রোটাং গিরিপথে ট্রাফিক অবস্থার উন্নতি হবে, তবে ভ্রমণার্থীরা সুড়ঙ্গ পথ বেছে নিলে তারা পার্শ্বস্থিত নয়নাভিরাম দৃশ্য পরিদর্শনের সুযোগ হাতছাড়া করবেন।

রোটাং গিরিপথ কোথায় অবস্থিত?

রোটাং গিরিপথ, হিমাচল প্রদেশ রাজ্যে, যা মানালি থেকে কেইলং যাওয়ার মহাসড়কের ওপর মানালি থেকে প্রায় 51 কিলোমিটার দূরত্বে অবস্থিত।

বিমান মাধ্যমে পৌঁছানোর উপায়
নিকটবর্তী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরটি হল দিল্লীর ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। এখানে থেকে ভুন্টার বিমানবন্দর পর্যন্ত একটি বিমানের মাধ্যমে পৌঁছাতে পারেন, যেটি কুলু মানালি বিমানবন্দর বা কুলু বিমানবন্দর নামেও পরিচিত। এখানে থেকে একটি ক্যাব নিলে আপনাকে মানালিতে পৌঁছে দেবে। মানালি থেকে, রোটাং গিরিপথ পর্যন্ত প্রচুর ভাড়া-ট্যাক্সি যাতায়াত করে।

রেল মাধ্যমে পৌঁছানোর উপায়
নিকটবর্তী প্রশস্ত গেজ রেলওয়ে স্টেশনটি হিমাচল প্রদেশের ঊনা-তে অবস্থিত। ঊনা থেকে ক্যাবের মাধ্যমে রোটাং গিরিপথে পৌঁছাতে প্রায় 5 ঘন্টা সময় লাগে – যার দূরত্ব প্রায় 330 কিলোমিটার।

রোটাং গিরিপথ পরিদর্শনের সেরা সময়

রোটাং গিরিপথ পরিদর্শনের সেরা সময় হল মে থেকে অক্টোবর। শীতের মাসগুলিতে গিরিপথটি বন্ধ থাকে।

রোটাং গিরিপথ দর্শনের সময়

ট্র্যাফিক ঝঞ্জাট এড়ানোর জন্য খুব ভোরের দিকে যাওয়ার চেষ্টা করুন।

রোটাং গিরিপথ টিকিট

রোটাং গিরিপথে ভ্রমণের জন্য কোনও টিকিটের প্রয়োজন নেই। তবে একজন ভ্রমণার্থীর পশমী কোট ও বুট ভাড়া নেওয়া প্রয়োজন। এগুলির ধার্যমূল্য সরকার কর্তৃক নির্ধারিত হয়।

সর্বশেষ জ্ঞাত ধার্যমূল্য হল নিম্নরূপ :

  • পশমী কোট, তুষারে চলার জুতো ও লাঠি (যুগ্মভাবে) প্রতিদিন মাথাপিছু 100/- টাকা (ভারতীয় মূল্যে)।
  • স্কিইং পোশাক : 150/- টাকা/মাথাপিছু/প্রতিদিন (ভারতীয় মূল্যে)।
  • স্কিং জোড়া সহ স্কিং পোশাক : 350/- টাকা/মাথাপিছু/প্রতিদিন (ভারতীয় মূল্যে)।
  • স্কিং জোড়া সহ স্কিং পোশাক : 350 + 150 = 500/- টাকা (উপদেষ্টা সহ)।
  • স্নো স্ক্যুটার :
    (i) 5 -10 মিনিট রাইড : 500/- টাকা (ভারতীয় মূল্যে)।
    (ii) 10-20 মিনিট রাইড : 1000/- টাকা (ভারতীয় মূল্যে)।
    (iii) 20-30 মিনিট রাইড : 1500/- টাকা (ভারতীয় মূল্যে)।
  • অশ্বারোহণ : 200/- টাকা (ভারতীয় মূল্যে)।

গন্তব্যস্থলটিতে যাওয়ার আগে সর্বশেষ ধার্যমূল্য যাচাই করে নেবেন।

রোটাং গিরিপথ সম্পর্কিত আরোও তথ্য

  • রোটাং গিরিপথের স্থানাঙ্ক কি কি?
    রোটাং গিরিপথের স্থানাঙ্ক হল 32.3714° N (ডিগ্রী উত্তর), 77.2464° E (ডিগ্রী পূর্ব)।
  • রোটাং গিরিপথের নিকটবর্তী আকর্ষণগুলি কি কি?
    রোটাং গিরিপথের নিকটবর্তী অন্যান্য পরিভ্রমণমূলক স্থানগুলির মধ্যে রয়েছে হাড়িম্বা মন্দির, রাহাল্লা জলপ্রপাত, মনূ মন্দির, প্রচুর মঠ, মানালি গোম্পা, বশিষ্ঠ, জগৎসুখ, সোলাং উপত্যকা, কোঠি, মণিকরন ও নগ্গর ইত্যাদি।


* সর্বশেষ সংযোজন : September 02, 2015

Published On: Wednesday, September 2nd, 2015