Quantcast

শিলং, ভারত

শিলং - প্রতিটি পর্বত-প্রমীদের পছন্দের তালিকায় শীর্ষে রয়েছে

"প্রাচ্যের স্কটল্যান্ড" হিসাবে প্রশংসিত, শিলং 4908 ফুট উচ্চতায় স্থিত রয়েছে। মেঘালয়ের এই রাজধানী শহরটি হল সবচেয়ে এক অন্যতম পরিচ্ছন্ন গন্তব্যস্থল, যা কাঠের তলবিশষ্ট ঘর ও খাসি রমণীদের সমন্বয়ে গঠিত যারা তাঁদের পিঠে শিশুদের বেঁধে নিয়ে প্রাত্যহিক নিত্যকর্মে বেরিয়ে পড়েন। শিলং শহরের বাইরে ও অভ্যন্তরে প্রচুর দর্শনীয় আকর্ষণ রয়েছে, যা প্রতিটি পর্বত প্রেমীদের পছন্দের তালিকায় জায়গা করে নিয়েছে।

শিলং-এর আকর্ষণ ও কার্যকলাপ

  • মওলীননোঙ্গ ভিলেজ : এশিয়ার সবচেয়ে “পরিচ্ছন্নময়” গ্রাম হিসাবে পুরষ্কারপ্রাপ্ত, মওলীননোঙ্গ হল- প্রাণবন্ত শিকড়ি-সেতু, প্রতিমান প্রস্তর, জলপ্রপাত ও কিছু বিস্ময়কর হাঁটার রাস্তা সহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক আকর্ষণের আয়োজক। শিলং থেকে মওলীননোঙ্গ পর্যন্ত 56 মাইলের দীর্ঘ সফর, প্রতিবেশী বাংলাদেশ ও শোহরা মালভূমির বেশ কিছু মহীয়ান দৃশ্যকল্প পরিদর্শনের সুযোগ করে দেয়।
  • উমিয়াম লেক : স্কটল্যান্ডের সমুদ্র শাখা বা হ্রদের সাথে তুলনাময়, উমিয়াম লেক শিলং থেকে বেশ কিছু দূরত্বে অবস্থিত। কেউ যদি শুধুমাত্র পর্যটকদের থেকে নির্বিঘ্নে একটি ছবির মতো নিখুঁত প্রশান্ত হ্রদের ধারে বসে থাকতে ভালবাসেন, উমিয়াম লেক সেইরকম একটি স্থান হতে পারে।
  • এলিফ্যান্ট জলপ্রপাত : এলিফ্যান্ট জলপ্রপাত নামকরণ করা হয়েছে কারণ জলপ্রপাতটির নিকটে একটি হস্তী-আকৃতির পাথর রয়েছে। যদিও এই প্রস্তরটি দীর্ঘদিন আগে একটি ভূমিকম্পে ধ্বংস হয়ে গিয়েছে, কিন্তু নামটি এখনও অটল রয়েছে। জলপ্রপাতটি তিনটি ধাপে রয়েছে। তাদের মধ্যে সবচেয়ে ঐশ্বর্যশালী হল তৃতীয় নির্ঝরটি। নীচেরটি দেখতে হলে একজন দর্শককে বেশ কিছু শ্রেণীবদ্ধ ধাপ নীচে নামা প্রয়োজন। জলোচ্ছাসের শব্দ ও শীতল বায়ু এক স্মরণীয় অভিজ্ঞতা তৈরি করে।
  • শিলং পার্ক বা শিলং ভিউপয়েন্ট : শিলং পরিভ্রমণে গেলে, এই অঞ্চলের সর্বোচ্চ কেন্দ্রে পাড়ি দেওয়াটা সর্বদাই একটি ভালো ধারণা। এখানকার টিলা ও উপত্যকাগুলির দৃশ্য খুবই উত্তেজনাপূর্ণ এবং এখানকার বাতাস লক্ষণীয়ভাবে খুবই সতেজ।
  • গল্ফ লিঙ্ক : এটি ভারতের প্রথম 18-টি গহ্বর যুক্ত গল্ফ ক্ষেত্র। আজকের দিনে, এটি শিলং-এর দৈনন্দিন জীবনের একটি অংশ এবং এই জলপ্রপাতটি অনেক স্থানীয়দের দৈনন্দিন যাতায়াতের পথেই পড়ে। গল্ফ ক্ষেত্রটির, এখানে সেখানে পাইন বৃক্ষ বেড়ে উঠেছে, দেখে মনে হয় যেন এক বিশাল সবুজ গালিচার আলতো ঢালু ঢিবের উপর ঘূর্ণমান রয়েছে। ঔপনিবেশিক যুগের গল্ফ ক্ষেত্রগুলি প্রথম পরিদর্শিত পর্যটকদের ভীষণ আকর্ষণ করে।
  • ওয়ার্ড’স লেক : গল্ফ ক্ষেত্র থেকে পায়ে হাঁটা দূরত্বের মধ্যেই শোভামন্ডিত সেতু, নৌকাচালনার সুবিধা ও রাজহাঁসেদের সঙ্গে সৌন্দর্যবর্ধিত এই সুন্দর হ্রদটি আচ্ছাদিত রয়েছে।
  • লৈৎলাম গিরিখাত : লৈৎলামের সুন্দর গিরিখাতটি এক চুড়ান্ত আবশ্যক পরিদর্শনযোগ্য স্থান। গিরিখাতটি, প্রধান শহর থেকে গাড়ির মাধ্যমে গেলে 45 মিনিট সময় লাগে। এটি রাসোং গ্রামের নীচের এক অত্যাশ্চর্য্য দৃশ্য উপলব্ধ করায়। লৈৎলাম গিরিখাতের চূড়া পিকনিকের জন্য মহান জায়গা। দুরুহ-মজ্জার ট্রেকার বা পদভ্রমণকারীরা, গ্রামের নীচে ট্রেক করার সুযোগ হাতছাড়া করতে চাইবেন না।
  • অল সেন্টস চার্চ : বর্তমানে অল সেন্টস ক্যাথিড্রাল নামে অভিহিত, এই ভবনটি একশ বছরের চেয়েও পুরনো। স্থানীয় খ্রীস্টান ধর্মাবলম্বীদের জমায়েতই শুধুমাত্র তাদের দৈনন্দিন প্রার্থনার জন্য এই গির্জায় ভিড় করে না, বরঞ্চ পরিদর্শন করতে আসা পর্যটকরাও তার ইতিহাস ও স্থাপত্যের সাক্ষী হতে এখানে ভিড় করে।
  • লেডি হাইদরি উদ্যান : এই জাপানি শৈলীর উদ্যানটি, ছোট ছোট পুকুরের এক উদার সিঞ্চনে, প্রেমীদের স্বর্গোদ্যান হিসাবে গড়ে তুলেছে। এই উদ্যানটিতে একটি ছোট চিড়িয়াখানা রয়েছে এবং বছরের যেকোনও সময় প্রচুর উৎসাহী শিশুরা খাঁচার মধ্যে থাকা আলস্যময় ভালুকদেরকে একদৃষ্টে দৃষ্টিপাত করে আছে দেখতে পাওয়া যায়। এছাড়াও উদ্যানটিতে একটি মিউজিয়াম ও যাদুঘর রয়েছে; যেখানে আপনি পাইথন (ময়াল সাপের) চর্ম, চিতা, হাতির মস্তকের খুলি ও বিরল জীবজন্তুর ছবি দেখতে পেতে পারেন।
  • পুলিশ বাজার : কেনাকাটার এই কেন্দ্রটি শিলং-এর বাণিজ্যিক কেন্দ্র। এখানকার বেশ কিছু দোকান প্রতীকি মর্যাদা অর্জন করেছে; যেমন – দিল্লী মিষ্টান্ন ভান্ডার, যেখানে জিলিপি বিক্রি হয়। বিক্রেতারা এখানকার ব্যস্ত রাস্তার মোড়ে ডাম্পলিং, সেদ্ধ ডিম, ঠোঙ্গায় মোড়া ভূট্টা ইত্যাদি বিক্রি করেন। শিলং-এর শীতল আবহাওয়ায় এই সমগ্র স্ন্যাকসগুলি আরোও মজাদার বলে মনে হয়।

শিলং-এর নিকটবর্তী অন্যান্য বেশ কিছু দর্শনীয় চমৎকার স্থানগুলির মধ্যে রয়েছে মৌসিনরাম, চেরাপুঞ্জি ও দ্বাকি। চেরাপুঞ্জি, পৃথিবীর সবোর্চ্চ বর্ষণমূখর বা সিক্ত স্থান ছিল, কিন্তু বর্তমানে এই শিরোণাম মৌসিনরাম দ্বারা গৃহীত হয়েছে। দ্বাকি, মেঘালয় ও বাংলাদেশ সীমান্তের উপর আচ্ছাদিত রয়েছে। এটি পাথুরে ও খুবই উষ্ণতম স্থান, কিন্তু একটি বিদেশী মাটির উপর পা স্পর্শ করার প্রলোভনে, দ্বাকি অনেক পরিদর্শককে প্রলুব্ধ করে।

শিলং-এ খাবারের সংস্থান

শিলং-এর স্থানীয় রান্না পর্ক (শুকরের মাংস), চিকেন (মুরগির মাংস) এবং মাছের দ্বারা প্রভাবিত। রেস্তোঁরাগুলিতে যেমন জিঞ্জার আ্যন্ড স্ক্যাই গ্রিল, কেনমোর এবং শিপ আ্যন্ড ডাইন দারুণ খাবারের অভিজ্ঞতা প্রদান করে। অন্যদিকে শেফ’স মাল্টি কিউজিন রেস্তোঁরা, যুক্তিসঙ্গত মূল্যে দারুণ খাবার পরিবেশন করে। সিসেম তার দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় রান্না এবং ঐতিহ্যগত উপজাতীয় রান্নার খাবারের জন্য পরিচিত।

বাসস্থানোপোগী ব্যবস্থা

পাইন সুইটস হোটেল, হোটেল নাইট ইন্ এবং শিলং ক্লাব গেস্টহাউস-এর, সাশ্রয়ী ভ্রমণার্থীদের মধ্যে বিশাল চাহিদা আছে। হোটেল সেন্টার পয়েন্ট এবং হোটেল আ্যলপাইন কন্টিনেন্ট্যাল হল শিলং-এর বেশ কিছু প্রসিদ্ধ মাঝারি মানের হোটেলের মধ্যে অন্যতম। হোটেল পোলো টাওয়ারস হল এই অঞ্চলের একমাত্র 4-তারা হোটেল।

শিলং মানচিত্র

শিলং সম্পর্কে তথ্যাবলী

  • মওলীননোঙ্গ ভিলেজ, 2005 সালে ডিসকভার ইন্ডিয়ার দ্বারা ‘সবচেয়ে পরিচ্ছন্নতম গ্রাম’ হিসাবে আখ্যায়িত হয়েছে।
  • লেডি হাইদরি উদ্যান, তার নামটি আসামের প্রথম রমণী (আসামের গভর্নরের স্ত্রী)-র থেকে প্রাপ্ত হয়েছে, তখন শিলং আসামের অভ্যন্তরে, বিটিশ শাসকের অধীনে ছিল।

শিলং কোথায় অবস্থিত?

মেঘালয়ের রাজধানী শিলং, গুয়াহাটি থেকে প্রায় 129 কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। এটি পূর্ব খাসি পার্বত্য জেলার সদর-দপ্তর।

বিমান মাধ্যমে পৌঁছানোর উপায় :
নিকটবর্তী বিমানবন্দর হল শিলং বিমানবন্দর (যা উমরোই বিমানবন্দর নামেও পরিচিত)। এটি মূখ্য শহর থেকে প্রায় 27 কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। কলকাতা ও গুয়াহাটি থেকে বিভিন্ন যাত্রীবাহী ও চার্টার ফ্লাইট এই বিমানবন্দরে উড়ানের সুবিধা রয়েছে। অন্য আরেকটি বিমানবন্দর হল গুয়াহাটিতে অবস্থিত গোপীনাথ বরদোলোই বিমানবন্দর। সেখান থেকে ভ্রমণার্থীরা অতি সহজেই একটি ক্যাব ভাড়া নিয়ে শিলং ভ্রমণ করতে পারেন। ভারতে, পাশ্চাত্য দেশগুলির অসদৃশ, আপনি শুধুমাত্র ক্যাব ভাড়া পেতে পারেন না। ক্যাবের সঙ্গে একজন চালকও ভাড়া করা প্রয়োজন। তাই গাড়ি ভাড়ার মধ্যে একজন চালকের খরচের মূল্য গুণিতক হয়ে দাঁড়ায়।
সড়ক মাধ্যমে পৌঁছানোর উপায় :
মেঘালয়ে কোনও রেলপথ নেই। সুতরাং, রেলের মাধ্যমে ভ্রমণার্থীরা গুয়াহাটি পর্যন্তই পৌঁছাতে পারবেন। সেখান থেকে, শিলং-এ যাওয়ার জন্য একটি ক্যাব ভাড়া করতে পারেন। এই দুটি শহরের মধ্যে যাতায়াতকারী ভাড়াটে ক্যাবগুলির এখানে বেশ প্রকোপ আছে। এছাড়াও গুয়াহাটি রেলওয়ে স্টেশন থেকে শিলং পর্যন্ত প্রচুর বাসও যাতায়াত করে। উত্তর-পূর্ব ভারতের বৃহত্তম শহর, গুয়াহাটি থেকে গাড়ির মাধ্যমে এই শহরে পৌঁছাতে মোটামুটি সাড়ে তিন ঘন্টা সময় লাগে।

শিলং পরিদর্শনের সেরা সময়

গ্রীষ্মকালে এখানকার তাপমাত্রার পরিমাণ হল 60 ডিগ্রী ফারেনহাইট 75 ডিগ্রী ফারেনহাইট। শীতকালে এই তাপমাত্রা 40 ডিগ্রী ফারেনহাইটেরও নীচে নেমে যেতে পারে। শিলং পর্যাপ্ত পরিমাণ বৃষ্টিপাত পায়। তবুও, শহরটি পার্বত্যময় হওয়া সত্ত্বেও এখানকার সড়কগুলি সু-পরিচর্যিত, জল দ্রুত নির্গমন হয়ে যায়। এক পশলা বৃষ্টির পর, সড়কগুলি আরোও পরিষ্কার দেখায় ও বাতাবরণও আরোও সতেজ হয়ে যায়। বর্ষাকালে জলপ্রপাতগুলি খুব সুন্দর আকার ধারণ করে, যদিও, প্রবল ভারী বর্ষণের সময় এগুলি বেয়ে নিচে নামা বিপজ্জনক হতে পারে। কুয়াশাচ্ছন্ন পাহাড়-পর্বতগুলি এক আমন্ত্রণমূলক স্থানরূপে আহ্বান জানায়।

শিলং-এর উপর আরোও তথ্য

  • উমিয়াম হ্রদের কাছাকাছি খুব বেশি হোটেল এবং খাবারের দোকান নেই। সুতরাং নিজেরাই নিজেদের খাবার নিয়ে যাওয়াটা বেশ ভালো ধারণা।
  • লৈৎলাম-এ পৌঁছে, আপনার গাড়ির চালকের কাছে স্মিট নামের জনপ্রিয় গ্রামটির কথা উল্লেখ করুন। লৈৎলাম, স্মিট থেকে খুব বেশি হলে ছয় মাইলের দূরত্ব।
  • লৈৎলাম-এ পরিভ্রমণের সময় সচরাচর জলের বোতল ও একটি লেবু সঙ্গে করে নিয়ে যান (অনেক সময় উচ্চতার কারণে আপনার বমন উদ্রেককর অনুভূতি হতে পারে)।
  • শহরটির সমস্ত প্রধান প্রধান কেন্দ্রগুলির বেশীরভাগই পরিদর্শন করার পূর্বে, যাওয়া-আসার ক্যাব অগ্রিম-বুকিং করে রাখুন, কেননা কাছাকাছি গ্রামগুলিতে ক্যাবগুলির উপলব্ধতা সম্পর্কে কিন্তু কোনও নিশ্চয়তা নেই।


* সর্বশেষ সংযোজন : August 28, 2015

Published On: Friday, August 28th, 2015