Quantcast

সিমলা, হিমাচল প্রদেশ

সিমলা তার সুন্দর তুষারাবৃত পর্বত এবং প্রাণবন্ত জলবায়ুর জন্য সুপরিচিত

ভারতের উত্তরীয় রাজ্য, হিমাচল প্রদেশে অবস্থিত সিমলা হল একটি খুবই জনপ্রিয় শৈল শহর। ঊনিশ শতকের পূর্ব থেকেই এটি শৈল শহর হিসাবে খ্যাত। সুস্থির পরিবেশ, তুষারাবৃত শৃঙ্গ ও ঐশ্বর্য্যশালী দৃশ্যের সঙ্গে মনোরম জলবায়ু সমন্বিত এই স্থান 1864 সালে ভারতের ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের গ্রীষ্মকালীন রাজধানী হিসাবে গড়ে উঠেছিল। ব্রিটিশরা তাদের নিজস্ব অপরিমোচনীয় ছাপ এই শৈল শহরটির উপর ছেড়ে গেছে এবং প্রচুর আকর্ষণের মধ্যে এই ইংরেজীয়ানা পর্যটকদের আকর্ষিত করে।

সিমলার আকর্ষণ

জাখু পাহাড় ও জাখু মন্দির : জাখু পাহাড় হল সিমলার সর্বোচ্চ শৃঙ্গ এবং পারিপার্শ্বিক ভূ-প্রকৃতির এক অত্যাশ্চর্য নিদারুণ দৃ্শ্য পরিদর্শনেরও প্রস্তাব দেয়। পাহাড়ের চূড়ায় স্থিত জাখু মন্দির প্রভু হনুমানের প্রতি উৎসর্গীকৃত। স্থানীয় কিংবদন্তিদের অনুমান অনুযায়ী, সঞ্জীবনী ঔষধি বিদ্যমান এই পাহাড়টিকে তুলে নিয়ে আসার সময় প্রভু হনুমান এখানে বিশ্রাম নিয়েছিলেন। এর ফলস্বরূপ, এই স্থানটি একইভাবে ভক্ত এবং ভ্রমণকারীদের মধ্যে খুবই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

ভ্যাইসরিগেল লজ : অবসারভেটারী পাহাড়ের উপর অবস্থিত ভ্যাইসরিগেল লজ 1988 সালে নির্মিত হয়েছিল এবং এটি ভারতের ভাইসরয়, লর্ড ডাফরিনের সরকারি বাসভবন হিসেবে ব্যবহৃত হত। বর্তমানে এই স্থানটি হল ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ আ্যডভান্স স্টাডিজ। লজটি শুধুমাত্র ভারতে ব্রিটিশ শাসনের মধ্যে একটি অন্তর্দৃষ্টি প্রদান করে না, বরঞ্চ সূর্যাস্ত ও সূর্যোদয়ের এক অত্যাশ্চর্য দৃ্শ্য পরিদর্শনেরও প্রস্তাব দেয়।

সামার হিল : বাণিজ্যিক সিমলার শশব্যস্ততা থেকে দূরে কোনও স্থান অন্বেষণকারী পর্যটকদের মধ্যে সামার হিল হল খুবই জনপ্রিয়। এর পথের চারপাশে ওক, সেডার, রডোডেনড্রন এবং আরোও অনেক গাছপালা বেড়ে উঠেছে। এখানে অবস্থিত ম্যানরভিল্যে ম্যানশন হল এই এলাকার সবচেয়ে বিখ্যাত ভবন, কারণ এটিই সেই জায়গা যেখানে মহাত্মা গান্ধী সিমলা ভ্রমণের সময় ছিলেন।

দ্য রিজ্ : এটি একটি উন্মুক্ত স্থান, যেটি সিমলার সবচেয়ে বেশি কার্যকলাপ কেন্দ্র রূপে পরিচিত। দ্য রিজ্ বা শৈলশ্রেণীতে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক ল্যান্ডমার্ক আছে এবং বেশ কিছু কার্যক্রম আয়োজনের পাশাপাশি এখান থেকে পার্শ্ববর্তী পর্বতগুলির এক সুন্দর দৃশ্য পরির্শনেরও প্রস্তাব দেয়। শহরের এই অংশটি সিমলার জনজীবনের জন্যও খুবই গুরুত্বপূর্ণ, কারণ এটির নীচের জলাশয় শহরের একটি প্রধান অংশে জল সরবরাহের দায়ভারে রয়েছে।

মল্ রোড : সিমলার বিপূল সংখ্যক ল্যান্ডমার্ক এখানে অবস্থিত হওয়ায়, মল রোড পর্যটকদের মধ্যে খুবই জনপ্রিয়। এছাড়াও এখানে বেশ কিছু রেস্তোঁরা, ক্লাব, বার ও দোকান অবস্থিত হওয়ায় এটি সিমলার বাণিজ্যিক কেন্দ্রস্থল হিসাবেও বিবেচিত হয়। যেকোনও ক্রেতাদের জন্য মল রোড স্বর্গোদ্যানের ন্যায়।

ক্রাইস্ট চার্চ : এটি 1844 সালে নির্মিত হয়েছিল এবং এটি উত্তর ভারতের দ্বিতীয় প্রাচীনতম গির্জা। ক্রাইস্ট চার্চটি রিজ্-এ অবস্থিত এবং এটি তার এলিজাবেথীয় স্থাপত্য ও তার নকশায়িত কাঁচের জানলার জন্য পর্যটকদের মধ্যে খুবই জনপ্রিয়। এছাড়াও গির্জাটিতে একটি পাইপ অর্গান রয়েছে, যেটি দেশের সবচেয়ে এক অন্যতম বৃহৎ হিসাবে বিবেচিত হয়। এটি তাদের জন্যই আদর্শ যারা আধ্যাত্মিকতার সাথে সাথে ইতিহাসের এক নিদর্শনকে খুঁজে চলেছে।

সেন্ট মাইকেল ক্যাথিড্রাল : সেন্ট মাইকেল চার্চ 1850 সালে নির্মিত হয়েছিল। এটা সিমলার প্রথম ক্যাথলিক গির্জা। এটিতে পাঁচটি মার্বেলের বেদী আছে যেগুলি 1855 সালে ইতালি থেকে আনা হয়েছিল। এছাড়াও গির্জাটিতে সুন্দর নকশায়িত কাঁচের জানলা রয়েছে, যেগুলি চোখদুটিকে উচ্ছাসিত করে তোলে।

গেইটি থিয়েটার : এই থিয়েটার বা নাট্যমঞ্চটি, সিমলায় ব্রিটিশ বাসিন্দাদের বিনোদনের সুযোগ প্রদানের জন্য 1887 সালে নির্মিত হয়েছিল। ভবনটির নব্য-গোথিক স্থাপত্য লালিত নেত্রের জন্য এক সুন্দর দৃশ্য। এখানে একটি প্রদর্শনী সভা, একটি আ্যম্ফিথিয়েটার ও অন্যান্য বহু সুযোগ-সুবিধা সহ একটি শৈল্পিক গ্যালারি রয়েছে। যেকোনও সূক্ষ শিল্পপ্রেমীদের জন্য এটি একটি অবশ্যই দর্শনীয় স্থান।

কালকা-সিমলা রেলওয়ে : টয় ট্রেন যা ঊনবিংশ শতকের মাঝামাঝি থেকে সিমলাকে, কালকা শহরটির সঙ্গে সংযুক্ত রেখেছে এবং শহরটিতে পৌঁছানোর জন্য সবচেয়ে অন্যতম জনপ্রিয় রাস্তা তবে এটি খুবই ধীর। তবে, পারিপার্শ্বিক দৃশ্য পরিদর্শনের জন্য যে কারোও কাছে এই 96 কিলোমিটার দীর্ঘ ট্র্যাকটি খুবই সুন্দর। রাস্তা বরাবর, ভ্রমণার্থীরা চারপাশের অঞ্চলের এক অত্যাশ্চর্য দৃ্শ্য পরিদর্শন করতে পায়। রেলটি 103-টি সুড়ঙ্গপথ ও 806-টি সেতুর মধ্যে দিয়ে অতিক্রম করে।

তত্তপানি : সিমলা থেকে কয়েক কিলোমিটার দূরে তত্তপানি-তে অবস্থিত সালফিউরাস উষ্ণ প্রসবণ অনেকের মতে ভেষজ উপকারিতা হিসাবে বিবেচিত হয় এবং সেই কারণেই চিকিৎসক পর্যটকদের জন্য তত্তপানি একটি খুবই জনপ্রিয় স্থান। উষ্ণ প্রসবণের পাশাপাশি, শতদ্রু নদীর ঠান্ডা জল রিভার র‍্যাফটিং-এর সুযোগ প্রদান করে।

কোটগড় : কোটগড়, সিমলা থেকে কয়েক কিলোমিটার দূরে, প্রাচীন হিন্দুস্তান-তিব্বত সড়কের উপর অবস্থিত এবং এটি আপেল বাগানের জন্যও প্রসিদ্ধ। এটি এমন একটি স্থান যেখানে 1914 সালে হিমাচল প্রদেশের মধ্যে সর্বপ্রথম বাণিজ্যিক ফলের বাগান স্থাপিত হয়েছিল। পরবর্তীকালে, কোটগড় প্রকৃতপক্ষে হিমাচল প্রদেশের এক অন্যতম প্রধান আপেল রপ্তানীকারক স্থান হয়ে ওঠে।

সিমলা জল-অববাহিকা অভয়ারণ্য : 10.25 বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে বিস্তৃত এই অভয়ারণ্যটি সরলবর্গীয় অরণ্য, খাড়াই ভূখণ্ড এবং ক্ষু্দ্র প্রবাহের গৃহস্থল। সিমলার 12 কিলোমিটার পূর্বে অবস্থিত এই স্থানটি হল বাদামী ভালুক, কৃষ্ণকায় হরিণ, ভারতীয় লাল শেয়াল ও ডোরা-কাটা হায়নার নিরাপদ আশ্রয়স্থল।

কেনাকাটার সংস্থান

লক্কর বাজার হল কাঠের হস্তশিল্প ও অন্যান্য সৌখিনজাত জিনিসপত্র কেনার জন্য একটি আদর্শ স্থান। রেস্তোঁরা, ক্লাব, বার এবং দোকানের অধিকাংশই মল রোডে অবস্থিত।

সিমলায় বাসস্থানোপযোগী ব্যবস্থা

যে সমস্ত ভ্রমণার্থীরা সাশ্রয়ী মূল্যের বাসস্থানোপযোগী জায়গার খোঁজ করছেন, তারা রক হেভেন হোটেল বা ভিক্টরি হোটেলে গিয়ে দেখতে পারেন। অন্যদিকে হোটেল হট্ স্প্রিং থার্ম আ্যন্ড স্পা এবং দ্য হুইসলিং পাইনস রিসর্ট হল মাঝারি মানের বাসস্থানোপযোগী জায়গার জন্য অসাধারণ বিকল্প। বিলাসবহুল শোভনীয় বাসস্থানোপযোগী স্থানের জন্য দ্য চ্যাপসলি এবং দ্য ওবেরয় সেসিল হল চমৎকার বিকল্প।

সিমলা মানচিত্র

সিমলা সম্পর্কে তথ্যাবলী

  • সিমলা নামটি হিন্দু দেবী, শ্যামলা দেবীর নামানুসারে নামকরণ করা হয়েছিল।
  • চন্ডীগড়ের সম্পূর্ণতা পর্যন্ত সিমলা পাঞ্জাবের রাজধানী ছিল।
  • কালকা-সিমলা রেলওয়ে ইউনেস্কো (ইউ.এন.ই.এস.সি.ও) দ্বারা বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান।
  • সিমলা, এশিয়ার প্রাচীনতম প্রাকৃতিক আইস স্কেটিং রিঙ্কের আবাসস্থল।
  • শহরটি কিংবদন্তী মাউন্টেন বাইকিং প্রতিযোগিতা এম.টি.বি. হিমালয়ার আয়োজন করে। এটি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় এই ধরনের সবচেয়ে বৃহত্তম কার্যক্রম।
  • পোটারের পাহাড়ে অবস্থিত ফটো আর্ট গ্যালারীতে হিমাচল প্রদেশের 20,000-এরও বেশি সুন্দর ফটোগ্রাফ বা আলোকচিত্র রয়েছে। “স্পুনিস” হল একটি দুর্নিবার মরুভূমি যা সিমলার এক অনন্য বৈশিষ্ট্য।

সিমলা কোথায় অবস্থিত?

সিমলা, ভারতের হিমাচল প্রদেশ রাজ্যে অবস্থিত।

পৌঁছানোর উপায় :

বিমান মাধ্যমে
সিমলা বিমানবন্দর, সিমলা থেকে প্রায় 22 কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এবং গাড়ির মাধ্যমে সিমলা থেকে সেখানে পৌঁছাতে প্রায় 50 মিনিট সময় নেয়। এটি একটি ছোট বিমানবন্দর এবং এখানকার অধিকাংশ বিমানগুলি কেবল নিকটবর্তী শহরগুলি পর্যন্তই যাতায়াত করে।

নিকটবর্তী মূ্খ্য বিমানবন্দরটি প্রায় 115 কিলোমিটার দূরে চন্ডীগড়ে অবস্থিত। সিমলা থেকে গাড়ির মাধ্যমে চন্ডীগড় বিমানবন্দরে পৌঁছাতে তিন ঘন্টারও বেশি সময় লাগে। বিমানবন্দরটি, দেশের সকল অংশের সাথে সু-সংযুক্ত রয়েছে।

রেল মাধ্যমে
কালকা-সিমলা রেলওয়ে হল একটি সংকীর্ণ গজ ট্র্যাক। এটি সরাসরি দেশের অন্যান্য কোনও অংশের সাথে যুক্ত নেই। যারা রেল মাধ্যমে এখানে আসার ইচ্ছাপ্রকাশ করেন, তা কালকা রেলওয়ে স্টেশন পূরণ করতে পারে। এটি দেশের অধিকাংশ অংশের সাথে সু-সংযুক্তকারী সিমলার সান্নিধ্যতম রেলওয়ে স্টেশন। প্রায় 88 কিলোমিটার দূরে অবস্থিত, রেলওয়ে স্টেশন থেকে সিমলায় পৌঁছাতে প্রায় আড়াই ঘন্টা সময় নেয়।

সড়ক মাধ্যমে
হিমাচল প্রদেশের সড়ক সংযোগ ব্যবস্থা বেশ ভালো এবং সড়ক মাধ্যমে সিমলা অন্যান্য শহরগুলির সাথে সু-সংযুক্ত আছে। এখানে প্রচুর বাসও রয়েছে যেগুলি সিমলা ও নিকটবর্তী শহরগুলির মধ্যে যাতায়াত করে।

সিমলা পরিদর্শনের সেরা সময়

সেপ্টেম্বর থেকে জুন মাসই অধিকাংশের দ্বারা সিমলা পরিদর্শনের সেরা সময় হিসাবে বিবেচিত হয়।

সিমলা সম্পর্কিত আরোও তথ্যাবলী

  • দিল্লী থেকে সিমলা কতদূরে অবস্থিত?
    সিমলা, দিল্লী থেকে প্রায় 360 কিলোমিটার দূরে অবস্থিত, যা গাড়ির মাধ্যমে পৌঁছাতে প্রায় সাত ঘন্টার মতো সময় লাগে।
  • সিমলার উচ্চতা কি?
    সিমলা, সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে 2,202 মিটার উচ্চতায় অবস্থান করছে।
  • সিমলায় আবহাওয়া কি প্রকারের হয়?
    গ্রীষ্মকালে, সিমলায় তাপমাত্রার পরিমাণ সাধারণত 14 ডিগ্রী সেন্টিগ্রেড থেকে 28 ডিগ্রী সেন্টিগ্রেডের মধ্যে থাকে। শীতকালে, এই তাপমাত্রা -2 ডিগ্রী সেন্টিগ্রেড থেকে 10 ডিগ্রী সেন্টিগ্রেডের মধ্যে বিরাজ করে।


* সর্বশেষ সংযোজন : September 01, 2015

Published On: Tuesday, September 1st, 2015