Quantcast

বালি, ইন্দোনেশিয়া

ইন্দোনেশিয়ার বালির সর্বোচ্চ হিন্দু মন্দির

ইন্দোনেশিয়ার বালি দ্বীপ বন্ধুত্বপূর্ণ মানুষ এবং সুন্দর প্রাকৃতিক আকর্ষণের সংমিশ্রণ। তার বালুকাময় সমুদ্রসৈকত, প্রবাহিত নদী ও সুন্দর বন্যপ্রাণী- অবিলম্বে দর্শকরা এই অঞ্চলের প্রেমে পড়ে যায়। যদিও এই দ্বীপটি সমস্ত পৃথিবী থেকে আগত পর্যটকদের মধ্যে জনপ্রিয়, তবে এটি বিশেষত অস্ট্রেলীয়ানদের মধ্যে খুবই প্রসিদ্ধ।

ইন্দোনেশিয়া দেশের বাকিদের থেকে বালি বেশ খানিকটা ভিন্ন প্রকৃতির এবং এটি একটি প্রদেশ। এটির নিজস্ব সরকার রয়েছে, তবে জাকার্তা ভিত্তিক সরকার উচ্চ মাত্রায় অর্থনীতি নিয়ন্ত্রিত করে। দ্বীপ-এর বালিনীয় সংস্কৃতি পর্যটকদের জন্য একটি প্রধান আকর্ষণ। এই সংস্কৃতি, এই অঞ্চলের মধ্যে দিয়ে অতিক্রান্ত, বিশেষত ইউরোপ, চীন ও ভারতের ন্যায় বহু সংস্কৃতির দ্বারা প্রভাবিত রয়েছে।

বালির পবিত্রময় পর্বতটি বিশ্বের আটটি “চক্র” বিন্দুর মধ্যে এক অন্যতম হিসাবে গণ্য করা হয়। শত শত বছর ধরে ঈশ্বর, বালির সংস্কৃতির একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ।

একটি উল্লেখযোগ্য আকর্ষণ হল যে দ্বীপটি তার পর্যটকদের উপর প্রভাব বিস্তারের ক্ষেত্রেও উদ্ভাবনী ক্ষমতা দেখিয়েছে, তবে বালির ক্ষেত্রে প্রযুক্তিগত অগ্রগতি ধীরে হয়েছে। হোটেল, রেস্তোঁরা ও অন্যান্য সার্বজনীন স্থানগুলি উচ্চ মানের হলেও, দ্রুত এবং নির্ভরযোগ্য সংযোগ এই অঞ্চলে প্রতিশ্রুত করা যাবে না। এই বাস্তবতা সত্ত্বেও, পর্যটন এবং বিশেষ করে মধুচন্দ্রিমার প্রসঙ্গে আসলে বালি দ্বীপ অত্যন্ত জনপ্রিয়। প্রচুর নববিবাহিত দম্পতি ও রোমান্টিক জুড়ি অবকাশ যাপনের জন্য এই অঞ্চলটিকে খুবই পছন্দ করে।

বালি মানচিত্র

বালি সম্পর্কে তথ্যাবলী

  • 15-টি দেশের নাগরিকদের; যেমন – থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, ব্রুনাই দারুসসালাম, ফিলিপাইন, হং কং, ম্যাকাও, চিলি, মরোক্কো, পেরু, ভিয়েতনাম, ইকূয়াডোর, কম্বোডিয়া, লাওস এবং মায়ানমার- বালি পরিভ্রমণের জন্য ভিসার প্রয়োজন হয় না। তাদের আগমনের উপর একটি ভিসা জারি করা হয়, যেটি তাদেরকে 30 দিনের জন্য এই অঞ্চলে থাকার অনুমতি দেয়।
  • এছড়াও বালি “পৃথিবীর অন্তিম স্বর্গোদ্যান” বা “দ্য লাস্ট প্যারাডাইস অন আর্থ” নামেও পরিচিত।
  • 2014 সালে 3.76 মিলিয়ন ব্যাক্তি বালি পরিদর্শনে গিয়েছিলেন।
  • 2010 সালে গৃহীত আদমশুমারি অনুযায়ী, দ্বীপটির মোট জনসংখ্যার প্রায় 83.5 শতাংশই হিন্দু সম্প্রদায়ভূক্ত।

বালি কোথায় অবস্থিত?

বালি দ্বীপটি ইন্দোনেশিয়ায় অবস্থিত। এটি জাভা থেকে মাত্র 2 কিলোমিটার দূরে এবং বিষুবরেখার 8 থেকে 9 ডিগ্রী দক্ষিণে অবস্থিত। বালিতে সংক্ষিপ্ত ভ্রমণের জন্য লিমো এবং ট্যাক্সি ভাড়া করা সহজ। ছোট-ছোট দলসহ, বালিতে বহু আকর্ষণগুলি তাদেরকে দর্শন করাতে পারে এমন একজন পেশাদার চালকের মাধ্যমে তারা চারপাশে ভ্রমণ করতে পছন্দ করে।

বালি পরিভ্রমণের সেরা সময়

বালির আবহাওয়া সারা বছর ধরেই বেশ মনোরম থাকে। তবে, মার্চ থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে ভারী বৃষ্টিপাতের অভিজ্ঞতা হতে পারে। ভ্রমণার্থীদের শুষ্ক মরশুম (এপ্রিল থেকে সেপ্টেম্বর) এই দ্বীপটিতে পরিভ্রমণের জন্য বেছে নেওয়া উচিৎ। তবে, প্রচুর মানুষ এই সময় বালি পরিদর্শনে আসায়, জিনিষপত্রের মূল্য বৃদ্ধির ঝোঁক বেড়ে যায় এবং পর্যটনস্থলগুলিও বেশ ঘনসন্নিবিষ্ট হয়ে ওঠে। কিন্তু এপ্রিল ও মে মাসের মধ্যে পরিভ্রমণে এলে আপনি বৃষ্টি এবং সেইসাথে ভিড় এড়াতে সক্ষম হতে পারেন।

বালির উপর আরোও তথ্য

নিকটবর্তী আকর্ষণ : কূটা, মূনকার, শ্রোনো, প্রায়া, গম্বিরান।

* সর্বশেষ সংযোজন : December 16, 2015

Published On: Wednesday, December 16th, 2015