Quantcast

মাচু পিচ্চু, পেরু


মাচু পিচ্চু-র প্রত্নতাত্ত্বিক স্থানটি 1911 সালের 24-শে জুলাই আবিষ্কৃত হয়েছিল, যখন ওয়েল বিশ্ববিদ্যালয়-এর এক মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রীয় ঐতিহাসিক এবং অধ্যাপক তথা অনুসন্ধানকারী হিরাম বিংহাম পেরুর প্রাচীন ভিলকাবাম্বা ধ্বংসাবশেষের গুজবের তদন্তে ঘন অরণ্যের মধ্যে দিয়ে গিয়েছিলেন। তাদের দলের নেতৃত্বে থাকা, একটি ছেলে বিংশ শতাব্দীর এক অন্যতম বৃহৎ প্রত্নতাত্ত্বিক স্থানটিতে গিয়ে হোঁচট খায়–যা মাচু পিচ্চু-র উদ্ঘাটন করে।

পাথরের অত্যুচ্চ দূর্গটি কোনও চুন-বালি মিশ্রন ছাড়াই পাহাড়ের ঢাল কেটে নির্মিত হয়েছিল, যা একটি অতি বিস্ময়কর স্থান। তৎকালীন পেরুর বিশেষজ্ঞ এবং পেরুর সাংস্কৃতিক জাতীয় প্রতিষ্ঠানের প্রাক্তন পরিচালক-লুইস লামব্রেরাসের কথায় “দূর্গটি প্রাসাদ, মন্দির, নিকেতন এবং গুদামের সমন্বয়ে গঠিত। মন্দির, বাড়ী, প্রাসাদগুলিও সেই স্থানের গ্রানাইট আকরিক কেটে পাথরের দ্বারা নির্মিত হয়েছিল। সংকীর্ণ পথ এইসমস্ত ভবন, মঞ্চ ও চত্বরগুলিকে সংযুক্ত করেছে।

মাচু পিচ্চু স্থান সংক্রান্ত বেশ কিছু তত্ত্ব রয়েছে। জন রো, রিচার্ড বার্গার, এবং লুসি সালাজার-বার্গার দ্বারা পরিচালিত আধুনিক গবেষণায় তারা তথ্য দেন যে - মাচু পিচ্চু সম্ভবত ইনকার সম্রাট পাচকূটির জন্য নির্মিত হয়েছিল এবং কখনও কখনও এই স্থানটিকে “ইনকাদের হারানো শহর” বা “দ্য লস্ট সিটি অফ দ্য ইনকাস” নামেও অভিহিত করা হত। যদিও স্থানটির পূর্ণ তাৎপর্য আজও অজানা, তবে অনেকেই মনে করেন যে, এই ধ্বংসাবশেষ একসময় ধনী সম্প্রদায়ের ব্যাক্তিদের ছুটি কাটানোর গন্তব্যস্থল হিসাবে ব্যবহৃত হত। আবার অনেকে মনে করেন যে, এটি তার নির্জন অবস্থানের দরুণ এক পবিত্র ধর্মীয় স্থান ছিল।

নৃ-প্রত্নতত্ত্ববিদ ব্রায়ান এস. বাওয়েরের প্রত্নতাত্ত্বিক সাক্ষ্য যথা বিভিন্ন প্রকার মূর্তি ও মৃৎশিল্পের গঠন প্রমাণ করে যে, এই অঞ্চলের অধিবাসীরা শুধুমাত্র ইনকা সাম্রাজ্যেরই অন্তর্গত ছিল না, বিভিন্ন সংস্কৃতির অন্তর্গত ছিল। বাসভবন অন্বেষণকারী জাতীয় ভৌগোলিকবিদ ডঃ জোহান রেইনহার্ডের মতে, মাচু পিচ্চু, উরুবাম্বা নদী এবং পবিত্র পর্বতমালা বেষ্টিত এক পবিত্র ভূপ্রকৃতির কেন্দ্রে নির্মিত হয়েছিল।

মাচু পিচ্চু, বেশ কিছু প্রাচীন ইনকা স্থানগুলির মধ্যে অন্যতম ছিল, যেটি স্পেনীয়-দের দ্বারা ধ্বংসীভূত বা অপহৃত হয় নি। ধ্বংসাবশেষটিতে অনেক কক্ষ রয়েছে যেগুলি প্রত্নতাত্ত্বিকদের দ্বারা উল্লেখিত নামকরণ করা হয়েছে; যেমন সূর্যের মন্দির এবং তিনটি জানলার কক্ষ। মাচু পিচ্চুর অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলির মধ্যে রয়েছে শকুনির মন্দির এবং ইন্তিহুয়াতানা-যা হল একটি উৎকীর্ণ পাথর যেটি সান্ ডায়াল বা সূর্যঘড়ি হিসাবে কাজ করে।

মাচু পিচ্চু-র ধ্বংসাবশেষ ও আকর্ষণ

সূর্যের মন্দির : একটি উপবৃত্তাকার নকশা সমন্বিত ‘সূর্যের মন্দির’ বা “টেম্পল অফ দ্য সান্”, টোরেওন বা চূড়া নামেও অভিহিত ছিল, এটি ইনকার রাজধানী কজকো-তে অবস্থিত এক সূর্য মন্দিরের প্রতিরূপ বলে মনে করা হত। মন্দিরের একটু নীচে, একটি গুহা রয়েছে যেটি অনুসন্ধানকারী হিরাম বিংহামের দ্বারা একটি 'রাজকীয় সমাধি' হিসাবে গণ্য করা হয়েছিল, যদিও এই বিশ্বাসটির সপক্ষে কোনও সাক্ষ্য প্রমাণ মেলে নি।

প্রধান মন্দির এবং ইন্তিহুয়াতানা : মাচু পিচ্চু অঞ্চলের উত্তর-পশ্চিম প্রান্তের দিকে এক সারিবদ্ধ ধর্মীয় নির্মাণ এই চত্বরটিকে সীমান্তবর্তী করে রেখেছে। প্রধান মন্দিরটি এক উৎকীর্ণ পাথরের বেদীর উপর বৈশিষ্ট্যযুক্ত রয়েছে। ইন্তিহুয়াতানা হল ইনকা সভ্যতার সবচেয়ে রহস্যময় ধ্বংসাবশেষ। এই বিশাল প্রস্তরটি একটি উঁচু প্ল্যাটফর্মের উপর স্থাপন করা হয়েছিল, যেটি চত্বরের উপরে স্থাপিত ছিল। এটি মনে করা হত যে, এই পাথরটি কোন এক ধরণের জ্যোতির্বিদ্যাসংক্রান্ত পর্যবেক্ষণ যন্ত্র হিসাবে ব্যবহৃত হত।

তিনটি জানলার মন্দির : এটি প্রধান মন্দিরের নিকটেই অবস্থিত এবং এখানে অসংখ্য আচার-অনুষ্ঠান সম্পর্কিত ভাঙ্গা মাটির পাত্র ছিল।

অনেকে মনে করেন যে এই স্থানগুলি প্রাচীন বহিরাগত বিদেশীদের দ্বারা নির্মিত হয়েছিল। তবে, বহিরাগত বিদেশীদের সঙ্গে মাচু পিচ্চুর কোন সংযোগ ছিল না। প্রাচীন পেরুর অধিবাসীরাই এই স্থানটি তৈরি করেছিলেন।

ট্রেলস : সবচেয়ে বেশী ব্যবহৃত মাচু পিচ্চুর রুট, মাচু পিচ্চু দূর্গ থেকে প্রায় 40 কিলোমিটার দূরে অবস্থিত, কজকো-মাচু পিচ্চু রেলওয়ে পথের 82 কিলোমিটার উপর থেকে শুরু হয়েছে। একটি সহজ পথ অনুসরণের জন্য, আপনি ক্যামিনো সাগরাডো (পবিত্র পথ) বেছে নিতে পারেন, যেটি ওই একই রেলওয়ে পথের 104 কিলোমিটার উপরে আরম্ভ হয়েছে। ইনকা পথানুসরণের জন্য লামা সফর বা ব্যাকপ্যাক ট্যুরও উপলব্ধ রয়েছে।

এই এলাকায় নির্দিষ্ট সফর বা কার্যক্রমের মধ্যে রয়েছে দূর্গ এবং মাচু পিচ্চুর নতুন শহর পরিদর্শন, হুআয়না পিচ্চু পর্বতে আরোহণ ও ইনকা ট্রেল-এ হাইকিং। মাচু পিচ্চুতে সফর পরিকল্পনা করার সময় আপনার ভ্রমণপরিকল্পনার মধ্যে গালাপাগোস দ্বীপপুঞ্জ এবং আমাজন নদী যোগ করার কথা মনে রাখবেন।

ভ্রমণ উপদেশ

  • এই স্থানে মদ্যপান বা মদ্য পানীয় নিয়ে যাওয়া কঠোরভাবে নিষিদ্ধ।
  • এই স্থানে ভাঙ্গচুর বা যে কোন ধরণের বর্বরোচিত কাজ কঠোরভাবে শাস্তিযোগ্য অপরাধ।
  • স্থানটির চারপাশে নোংরা করবেন না।
  • 20 কে.এল. ওজন পর্যন্ত সামগ্রী বহন করার অনুমতি দেওয়া হয়।
  • বন্য জীবজন্তুদের খাবার দেওয়া নিষিদ্ধ।
  • যেহেতু স্থানটিতে উলম্বভাবে সিঁড়ি আছে, তাই ওঠা-নামার জন্য সচেতন হওয়া প্রয়োজন।

পেরুর অন্যান্য আকর্ষণীয় স্থানগুলির মধ্যে রয়েছে মিরাফ্লোরেস, লিমার ঐতিহাসিক কেন্দ্র, পারকিউ ডি লা রিসার্ভা, লিমা ক্যাথিড্রাল, ম্যাজিক ওয়্যাটার সার্কিট এবং সান ডোমিঙ্গোর মঠ ইত্যাদি।

মাচু পিচ্চু মানচিত্র

ভি.ডি.ও

মাচু পিচ্চু সম্পর্কে তথ্যাবলী

  • মাচু পিচ্চু, ইনকার নবম শাসক, পাচকুটি ইনকা ইউপানকিউ-এর দ্বারা প্রায় 1,430 খ্রীষ্টাব্দে নির্মিত হয়েছিল।
  • এটি সমু্দ্রপৃষ্ঠ থেকে প্রায় 2,430 মিটার উচ্চতায় অবস্থিত।
  • 80,000 একর এলাকা জুড়ে বিস্তৃত, এই স্থানটি প্রত্নতত্ত্ববিদদের কাছে এক অন্যতম প্রিয় স্থান হয়ে উঠেছে।
  • ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয়, পেরুর মাচু পিচ্চুতে পুনরাবৃত্ত রয়েছে।
  • এক বিশ্বব্যাপী মনোনয়নের মাধ্যমে মাচু পিচ্চু 2007 সালে বিশ্বের নতুন সপ্তম আশ্চর্য্যের মধ্যে অন্তর্ভূক্ত হয়েছিল।

মাচু পিচ্চু কোথায় অবস্থিত?

দক্ষিণ আমেরিকায় পেরুর কাশকো অঞ্চলে উরুবাম্বা উপত্যকায় একটি পর্বতের উপর মাচু পিচ্চু অবস্থিত।

পৌঁছানোর উপায়

প্রচুর ভ্রমণার্থী অন্যান্য স্মৃতিসৌধ ও পথ বরাবর ধ্বংসাবশেষ পরিদর্শনের জন্য মাচু পিচ্চুতে পৌঁছানোর জন্য ইনকা পথানুসরণ করে উপরে ওঠে, তবে বর্তমানে একটি সরকারি অনুমতিপত্র (পাস) প্রয়োজন হয়। লিমা থেকে উড়ে যাওয়া কাশকোর নিকটবর্তী বিমানবন্দরটি, কাশকো বিমানবন্দর নামে পরিচিত। এটি 11,000 ফুট উচ্চতায় অবস্থিত। এছাড়াও আপনি 20-ঘন্টা বাস যাত্রার মাধ্যমেও কাশকোয় পৌঁছাতে পারেন। কাশকো থেকে, আপনি একটি ক্যাব ভাড়া নিয়েও মাচু পিচ্চুতে পৌঁছাতে পারেন। মাচু পিচ্চুতে যাত্রীদের পরিবহনের জন্য ট্রেন ও বাস উপলব্ধ রয়েছে। ভিস্তাডোম ট্রেন দ্বারা মাচু পিচ্চুর জন্য তিনটি অন্তর্হিত স্টেশনে পরিষেবা উপলব্ধ রয়েছে। তার মধ্যে একটি স্টেশন হল কাশকোয় এবং বাকি দুটি স্যাকরেড উপত্যকায় অবস্থিত।

মাচু পিচ্চু পরিদর্শনের সেরা সময়

বর্ষার মরশুমকে এড়িয়ে, মাচু পিচ্চু পরিদর্শনের জন্য এপ্রিল থেকে অক্টোবর পর্যন্ত ভ্রমণের পরিকল্পনা করা উচিৎ। যদিও জুন থেকে আগস্ট গ্রীষ্মের মাসগুলি খুবই ব্যস্ত থাকে এবং এইসময় বাসস্থানোপযোগী জায়গা খুঁজে পাওয়া কঠিন হয়ে উঠতে পারে।

মাচু পিচ্চু দর্শনের সময়

মাচু পিচ্চু প্রতিদিন সকাল 6:00-টা. থেকে বিকেল 5:00-টা. পর্যন্ত উন্মুক্ত থাকে।

মাচু পিচ্চু টিকিট

বিদেশীদের জন্য টিকিটের সাধারণ প্রবেশ মূল্য হল নোওভ্যা সোলেস 128 বা US$ 52, অন্যদিকে পেরুভিয়ানস বা পেরু-অধিবাসীদের জন্য নোওভ্যা সোলেস 65 বা US$ 26. মিউজিয়াম ও হুআয়না পিচ্চু ভ্রমণের জন্য আলাদা প্যাকেজ উপলব্ধ রয়েছে। মাচু পিচ্চু পরিভ্রমণের জন্য আপনি অনলাইন টিকিটও কিনতে পারেন।

মাচু পিচ্চুর উপর আরোও তথ্য

  • “মাচু পিচ্চু” শব্দটির অর্থ কি?
    “মাচু পিচ্চু” হল একটি কুয়েচূয়া বা রুনা সিমি শব্দ, যার অর্থ হল “প্রাচীন পর্বত”।
  • মাচু পিচ্চু কেন পরিত্যক্ত হয়েছিল?
    কথিত আছে, কোন এক অজানা কারণে এখানকার অধিবাসীরা হঠাৎ করে এই স্থান পরিত্যাগ করেন। দূর্গটি প্রাকৃতিক দুর্যোগ উপেক্ষা করে এখনও অক্ষতভাবে দাঁড়িয়ে রয়েছে যা প্রমাণ করে এটি কোনও প্রাকৃতিক দুর্যোগ ছিল না। স্থানটির একটি স্থায়ী রহস্য রয়েছে যা প্রত্নতাত্ত্বিকরাও সমাধান করতে অক্ষম হয়েছেন।

  • মাচু পিচ্চু স্থানটির কে পরিচালনা করেন?
    পেরুর সাংস্কৃতিক মন্ত্রণালয়ের এক উপনিবেশ – কাশকো সাংস্কৃতিক আঞ্চলিক দিকনির্দেশনা দ্বারা মাচু পিচ্চু স্থানটি পরিচালিত হয়।

  • কতজন দর্শকদেরকে প্রত্নতাত্ত্বিক স্থানটিতে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়?
    প্রতিদিন কেবলমাত্র 2,500 ভ্রমণার্থীকে এই ধ্বংসাবশেষটি পরিদর্শনের অনুমতি দেওয়া হয়।

    * সর্বশেষ সংযোজন : October 07, 2015

Published On: Wednesday, October 7th, 2015