Quantcast

কেপ টাউন, দক্ষিণ আফ্রিকা

কেপ টাউন তার ভ্রমণার্থীদেরকে মনোরম আবহাওয়া ও চিত্তাকর্ষক স্থানসমূহ পরিদর্শনের প্রস্তাব দেয়

সস্নেহে “জননী শহর” নামে অভিহিত কেপ টাউন-এ পর্যটকদের চাহিদার সমস্ত কিছু রয়েছে – মনোরম আবহাওয়া, দৃষ্টিনন্দন স্থান, উন্মুক্ত সতেজ বাতাস, সুস্বাদু খাবার, বন্ধুভাবাপন্ন স্থানীয় অধিবাসী এবং দর্শন ও করণীয়তার প্রচুর কিছু রয়েছে। বিস্ময়ের কিছু নেই যে এটি স্বতস্ফূর্তভাবে পর্যটন + বিশ্বের অবকাশের শ্রেষ্ঠ শহরগুলির মধ্যে একটি। – সি.এন.এন

কেপটাউনে পরিদর্শনমূলক স্থান

টেবিল মাউন্টেন : টেবিল মাউন্টেন পরিদর্শন ব্যতীত কেপ টাউন সফর অসম্পূর্ণ থেকে যাবে। পর্বতটির চূড়ায় পৌঁছানো খুবই সহজ; টেবিল মাউন্টেন কেবলওয়ে-কে অসংখ্য ধন্যবাদ যা কয়েক মিনিটেই পর্যটকদের পর্বতশৃঙ্গে নিয়ে যেতে পারে। টেবিল মাউন্টেনে আপনি অন্যান্য ক্রিয়াকলাপগুলিও উপভোগ করতে পারেন; যেমন – হাইকিং, রক ক্লাইম্বিং, স্পেলাঙ্কিং (ক্যাভিং) এবং আরোও অনেক কিছু। এছাড়াও এটি প্রকৃতির নতুন সপ্তম আশ্চর্যের তালিকার মধ্যে অন্তর্ভূক্ত হয়েছে।

কার্স্টেনবস ন্যাশনাল বোটানিক্যাল গার্ডেন : টেবিল মাউন্টেন-এর পূর্বীয় ঢালের প্রতিকূলে অবস্থিত কার্স্টেনবস ন্যাশনাল বোটানিক্যাল গার্ডেন হল সমগ্র আফ্রিকার সবচেয়ে এক অন্যতম শ্রেষ্ঠ বোটানিক্যাল গার্ডেন। উদ্যানটি দক্ষিন আফ্রিকার অসাধারণভাবে সমৃদ্ধ এবং বৈচিত্র্যময় উদ্ভিদজগৎ-কে প্রদর্শিত করে, বিশেষত কেপ ফ্লোরার অনন্য উদ্ভিদ জীবন প্রদর্শিত করে, যা ডাচ বা ওলন্দাজ ঔনিবেশিকদের দ্বারা ফিয়েনবোস নামে অভিহিত। পর্যটকরা এখানে বিভিন্ন উদ্ভিদ দেখতে পেতে পারেন; যেমন সুগারবুসেস, পিনকূশানস, হিয়াথ, সাইকাড ও অন্যান্য আরোও কিছু এই উদ্যানে পরিলক্ষিত হয়; এগুলির মধ্যে কিছু কিছু বিরল ও বিপন্ন প্রজাতিও রয়েছে। সেন্টেনারী ট্রি ক্যানোপী ওয়াকওয়ে, যা আনুষ্ঠানিকভাবে “বুমস্ল্যাঙ্গ” নামে অভিহিত। যার অর্থ হল গেছো সাপ। এটি পর্যটকদের জন্য উদ্যানটির অনুসন্ধানের ক্ষেত্রে একটি দারুণ উপায়। কেবলমাত্র উদ্ভিদই নয়, এছাড়াও আপনি এখানে আরোও অনেক কিছুরও অন্বেষণ করতে পারেন; যেমন সুগারবার্ড, সানবার্ড, আফ্রিকান বিষণ্ণ ফ্লাইক্যাচার, প্রান্তর বাজপাখি, মিশরীয় রাজহাঁস এবং ঈগল পেঁচা; এর সঙ্গে আরোও রয়েছে শজারু, বেজি, কচ্ছপ, কেপ কোবরা, দুরারোহ পাহাড়ে বসবাসকারী পন্নগ ইত্যাদি।

লায়ন’স হেড : একটি ক্ষুধার্ত সিংহ বা এক স্ফিংক্স-এর ন্যায় লায়ন’স হেড, কেপ টাউনে দর্শনীয় প্রেক্ষাপটের একটি অংশ নিয়ে গঠিত। টেবিল মাউন্টেন-এর সান্নিধ্যে অবস্থিত লায়ন’স হেড হল কেপ টাউনের আরেকটি জনপ্রিয় গন্তব্যস্থল। শৃঙ্গটিতে পৌঁছাতে এক ঘন্টার মতো সময় লাগে এবং আটলান্টিক সমুদ্রতীরের একটি রাজকীয় দৃশ্য পরিদর্শনের প্রস্তাব দেয়, বিশেষ করে পূর্ণিমার সময়। লায়ন’স রাম্প বা সিগন্যাল হিল বরাবর লায়ন’স হেড হল প্যারাগ্ল্যাইডিং-এর জন্য একটি জনপ্রিয় স্থান এবং পর্যটকরা শৃঙ্গের চূড়া থেকে একটি ট্যান্ডেম প্যারাগ্ল্যাইড উপভোগ করতে পারেন।

ক্লিফটোন সৈকত : বালুকাময় এই সু্ন্দর প্রসারণটি বায়ুপ্রবাহ থেকে নিভৃতে আশ্রয় নেওয়ার জন্য এবং সানবাথ বা রৌদ্রস্নানের জন্য একটি অসাধারণ স্থান। সৈকতটি বিশালাকার পাথরের চাঁই দ্বারা চারভাগে বিভক্ত রয়েছে এবং প্রতিটি বিভাগই বেশ নিরাপদ। এই সৈকতটি কঠোর নির্দেশিকার মাধ্যমে তার সামুদ্রিক জীবন রক্ষা, জলের গুণমানতা বজায় রাখা ও আরোও অন্যান্য কিছুর জন্য 2003 সালে ডিসকভারি ট্র্যাভেল চ্যানেল দ্বারা ব্লু ফ্ল্যাগ বা নীল পতাকা-র মর্য্যাদায় স্বীকৃত হয়েছে। এছাড়াও আরোও মজার ব্যাপার হচ্ছে 2005 এবং 2006 সালের Forbes.com-এর দ্বারা বিশ্বের শ্রেষ্ঠ 10-টি অনাবৃত সৈকতের মধ্যে অষ্টম স্থান অর্জন করেছিল।

বোল্ডার্স সৈকত : সমুদ্র-সৈকতটির সবচেয়ে প্রসিদ্ধ দৃষ্টিভঙ্গি কেবলমাত্র সূর্য এবং বালিই নয়, বরঞ্চ এটি আফ্রিকান পেঙ্গুইনের উপনিবেশ যা 1982 সালে এখানে বসতি স্থাপণ করে। তারপর থেকে উপনিবেশটিতে 3000-এরও বেশি সংখ্যক পেঙ্গুইন রয়েছে। সৈকতের পাশাপাশি একটি হুইলচেয়্যার-বান্ধব ব্রোডওয়াক রয়েছে যেখানে পর্যটকরা পেঙ্গুইনদেরকে কয়েক মিটারের মধ্যে পেয়ে যাবেন। তবে একটু সতর্কতা অবলম্বন করা আবশ্যক যে পেঙ্গুইনদেরকে স্পর্শ বা খাওয়ানোর চেষ্টা করবেন না কারণ তারা কামড়ানোর জন্য বেশ পরিচিত।

মুইজেনবার্গ সৈকত : এই সৈকতটি দক্ষিণ আফ্রিকার সার্ফিং-এর জন্মস্থান হিসাবে বিবেচিত হয়। এখানে পর্যটকরা কিছু সমুদ্র তরঙ্গ ও সার্ফিং উপভোগ করতে পারেন। এছাড়াও অপেশাদার ব্যাক্তিরা বিশেষজ্ঞদের থেকে সার্ফিং-এর কিছু কৌশলের শিক্ষা নিতে পারেন। এছাড়াও সমুদ্রসৈকতটি বেশ কিছু বর্ণময় চেঞ্জিং রুমের বৈশিষ্ট্য সমন্বিত রয়েছে যা নীলাভ জল ও সাদা বালুকার সমন্বয়ে অত্যাশ্চর্য্য দেখায়।

শার্ক ডাইভিং : পর্যটকরা কাছ থেকে দেখতে পারেন এবং গাঁসবাইতে এগিয়ে গিয়ে ব্যাক্তিগতভাবে সমুদ্রের সেরা প্রাণীর সঙ্গে পরিচিত হতে পারেন। এখানে এমন অনেক পরিচালক রয়েছেন যারা পর্যটকদের সমুদ্রের অনুসন্ধানে এবং শার্ক বা হাঙ্গর পূর্ণ জলের মধ্যে ডাইভে নিয়ে যেতে রাজী হবে। ডুবুরিরা হাঙ্গর-অভেদ্য খাঁচায় করে তাদের সামনে নিয়ে যাবে এবং প্রকৃতির সবচেয়ে ভয়ঙ্কর এবং মহৎ বিশালাকার প্রাণীর সঙ্গে একের পর এক সম্মুখীন হওয়ার অভিজ্ঞতা উপভোগ করতে পারবেন।

বে হারবার মার্কেট : হাউট বে হারবারে অবস্থিত এই মার্কেট বা বাজারটি পর্যটকদের একই সঙ্গে কেনাকাটা, সঙ্গীত ও বিনোদন প্রদান করে যা স্বতন্ত্র রূপে দক্ষিণ আফ্রিকান। বিপণি বা মার্কেটটিতে 100-রও বেশি দোকান রয়েছে, যা একটি পুরানো মাছের আড়ৎ ও পারিপার্শ্বিক এলাকার ভিতরে স্থাপন করা হয়েছে। এখানে ভ্রমণার্থীরা শিল্পকলা, কারুকার্য, অভ্যন্তরীণ নকশায়িত পণ্যদ্রব্য ও আরোও অনেক কিছু কেনাকাটা করতে পারেন। অবশ্যই একটি রেস্তোঁরায় খাবারের চেয়ে সস্তায় এই খাবারের দোকানগুলি তাজা, বেশিরাগই স্থানীয় উপাদান, অথচ অবিশ্বাস্যরূপে বৈচিত্র্যময় আন্তর্জাতিক প্রস্তুতি নিয়ে অত্যন্ত সুস্বাদু খাবার পরিবেশন করে।

ডিস্ট্রিক্ট সিক্স মিউজিয়াম : ডিস্ট্রিক্ট সিক্স মিউজিয়াম-এ দক্ষিণ আফ্রিকার কালো অতীতে ফিরে যাওয়া যাক। এখানে আপনি এই বহুজাতি-সংবলিত এলাকা বর্ণবিদ্বেষের সময় 1960 এবং 1970 সালে কিভাবে চূর্ণ-বিচূর্ণ হয়েছে, সেই সম্পর্কে আরো জানতে পারবেন, এইসময় প্রায় 60,000 অধিবাসীকে জবরদস্তিভাবে তাদের নিজস্ব গৃহ থেকে উৎখাত করে দেওয়া হয়েছিল। অভ্যন্তরে, মানচিত্র, গৃহের পুর্নগঠন, আলোকচিত্র, রেকর্ডিং এবং আরোও অনেক কিছু রয়েছে। মিউজিয়ামে কর্মীদের মধ্যে অধিকাংশই ছিল সেইসময়কার বাস্তুচ্যুত হওয়া ব্যাক্তি এবং তাঁদের প্রত্যেকের কাছেই বলার জন্য একটি মর্মান্তিক প্রাণঘাতী হৃদয়ভঙ্গকারী গল্প-কাহিনী রয়েছে।

কেপ টাউনে বাসস্থানোপযোগী ব্যবস্থা

সাশ্রয়ী ভ্রমণার্থী এবং ব্যাকপ্যাকারা, লজিং-এর জন্য আটলান্টিক পয়েন্ট ব্যাকপ্যাকার ও আফ্রিকান হার্ট ব্যাকপ্যাকার-এ অনুসন্ধান করতে পারেন। অন্যদিকে মাঝারি-মানের ভ্রমণার্থীরা আ্যলোই গেস্ট হাউস বা সেন্ট জর্জ হোটেলে থাকতে পারেন। উদ্যমতায় ইচ্ছুক ভ্রমণার্থীরা টেবিল বে হোটেল এবং পি.ও.ডি ক্যাম্পাস বে-তে গিয়ে দেখতে পারেন।

কেপ টাউন মানচিত্র

কেপ টাউন সম্পর্কে তথ্যাবলী

  • কেপ টাউন দক্ষিণ আফ্রিকার বিধানিক রাজধানী, অন্যদিকে প্রিটোরিয়া এবং ব্লোয়েমফোন্টেইন হল যথাক্রমে তার নির্বাহী ও বিচার বিভাগীয় রাজধানী।
  • তিন কোটি পঞ্চাশ লক্ষেরও বেশি জনগণ সমন্বিত কেপ টাউন হল জোহানেসবার্গের পর দক্ষিণ আফ্রিকার দ্বিতীয় বৃহত্তম জনবহুল শহর।
  • কার্স্টেনবস, দক্ষিণ আফ্রিকার এক ধরনের উদ্ভিদকূলকে রক্ষা করার সহায়তায় 1913 সালে প্রতিষ্ঠিত হয় এবং এটি এই উদ্দেশ্যের সঙ্গে হল বিশ্বের প্রথম বোটানিক্যাল গার্ডেন।

কেপ টাউন কোথায় অবস্থিত?

কেপ টাউন, আফ্রিকা মহাদেশের সুদূর দক্ষিণ কেন্দ্রের সান্নিধ্যে, দক্ষিণ আফ্রিকার দক্ষিণ উপকূল বরাবর অবস্থিত।

পৌঁছানোর উপায়

বিমান মাধ্যমে : কেপ টাউন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরটি শহরের অভ্যন্তরে অবস্থিত এবং সারা বিশ্বের প্রচুর বিমান পরিষেবা এখান থেকে চালু রয়েছে।

রেল মাধ্যমে : কেপ টাউন রেলওয়ে স্টেশন হল শহরের প্রধান স্টেশন এবং এখানে অনেক ট্রেন রয়েছে যেগুলি দক্ষিণ আফ্রিকার অন্যান্য শহরের মধ্যে চলাচল করে। শোশোলোজা মেইল, ব্লু ট্রেন এবং রোভোস রেল হল এমন কিছু ট্রেন যেগুলি বিশেষভাবে পর্যটকদের অভিপ্রেত।

কেপ টাউন পরিদর্শনের সেরা সময়

মার্চ থেকে মে এবং সেপ্টেম্বর থেকে নভেম্বরের সময় হল কেপ টাউন পরিদর্শনের সেরা সময় কারণ এই সময় আবহাওয়া ভালো থাকে এবং ভিড়ও কম হয়।

কেপ টাউন সম্পর্কিত তথ্য

কেপ টাউন-এর মরশুম কখন?

যেহেতু কেপ টাউন দক্ষিণ গোলার্ধে অবস্থিত, তাই এখানকার মরশুম উত্তর গোলার্ধের থেকে সম্পূর্ণ বিপরীত। কেপ টাউনে গ্রীষ্মকাল ডিসেম্বরের শুরু থেকে মার্চ পর্যন্ত বিরাজ করে, অন্যদিকে শীতকাল জুন থেকে আগস্ট পর্যন্ত স্থিত হয়।

কেপ টাউনে কি ভাষায় কথা বলা হয়?

যদিও কেপ টাউনের মধ্যে সবচেয়ে কথিত ভাষা হল আফ্রিকান, তবে বেশিরভাগ স্থানীয়রা ইংরাজী ভাষাতেও কথা বলে।

* সর্বশেষ সংযোজন : December 16, 2015

Published On: Wednesday, December 16th, 2015