Quantcast

জেজু দ্বীপ, দক্ষিণ কোরিয়া

জেজু আইল্যান্ডে সেওঙ্গসান ঈলচূলবোঙ্গ (আগ্নেয়গিরি কোণ)-এর দৃশ্য

জেজু দ্বীপ বা জেজু দো ,কোরিয়া বাসী এবং এই দেশের পর্যটক উভয়ের জন্যই এক জনপ্রিয় পর্যটন গন্তব্য। দক্ষিণ কোরিয়ার দক্ষিণ-পশ্চিমের এই আগ্নেয় দ্বীপ তার প্রাকৃতিক সমুদ্রসৈকত, অত্যাশ্চর্য পার্বত্যাঞ্চল এবং স্বাতন্ত্র্যসূচক সংস্কৃতির জন্য বহু পর্যটকদের আকর্ষণ করে। সম্প্রতি 2011 সালে এই স্থান বিশ্বের সপ্ত প্রাকৃতিক আশ্চর্যের মধ্যে এক অন্যতম নতুন স্থান হওয়ার স্বীকৃতি পেয়েছে।

বস্তুত জেজু দো দক্ষিণ কোরিয়ার মূল ভূখন্ড থেকে পৃথক হয়ে তার নিজস্ব সংস্কৃতি ও চরিত্রগত উপভাষা সংরক্ষণ করতে সক্ষম হয়, যা আধুনিক দক্ষিণ কোরিয়া থেকে বেশ স্বতন্ত্র।এটি তিনটি জিনিসের জন্য বিখ্যাত - নারী(সমাজে তাদের গুরুত্বের জন্য), পাথর (দ্বীপ জুড়ে বিস্তৃত স্বতন্ত্র খোদাইকৃত কালো "গ্র্যান্ড ফাদার পাথর" এর জন্য) এবং বাতাস (সারাবছর ধরে সামুদ্রিক দমকা হাওয়ার জন্য)।এই দ্বীপ এখানকার কিছু প্রাকৃতিক গন্তব্য দ্বারা এখানকার পরিদর্শকদের মুগ্ধ করে, যেমন - সমুদ্র সৈকত, পাথুরে পাহাড়, আগ্নেয় পর্বত, গুহা এবং জলপ্রপাত।এছাড়াও জেজু-দো-এ কিছু অত্যন্ত চিত্তাকর্ষক মিউজিয়াম রয়েছে।

জেজু আকর্ষণসমূহ –

হালাসান –

এই দ্বীপের কেন্দ্রে অবস্থিত হালাসান বা হালা পর্বত রোমাঞ্চকর ক্রিয়াকলাপে উৎসাহী পর্যটকদের জন্য একটি বিখ্যাত পর্বতারোহণ গন্তব্য।এটি একটি ঢালের আকারে অবস্থিত এবং এর অগ্নুৎপাতের একটি দীর্ঘ ইতিহাস রয়েছে। তার উলম্ব বাস্তুতন্ত্রের কারণে হালা পর্বত প্রায় 1,800 টিরও বেশী প্রজাতির উদ্ভিদ এবং প্রায় 4,000 প্রজাতির প্রাণী সমন্বয়ে গঠিত, হালা পর্বত একটি জাতীয় উদ্যান হিসাবে চিহ্নিত। এটি এছাড়াও মাউন্ট ইয়ংযুসান নামে পরিচিত।এছাড়াও এখানকার পর্বতারোহণ কোর্সগুলি হল – ইয়ংসিল, গুয়ানিয়ামসা, সেওংপানাক, এয়োসেয়াংসায়িংগাক এবং ইওরিমক।এই পথগুলি মোটামুটি সহজ এবং এক দিনের মধ্যে সম্পন্ন করা যায়।

জিওমিউনোরিয়াম লাভা টিউব –

জিওমিউনোরিয়াম লাভা টিউব গুহার একটি সারি ধারাবাহিকভাবে আগ্নেয়গিরিজাত শিলাসংক্রান্ত লাভা প্রবাহের ফলে তৈরি হয়েছে। এই গুহার সারি উত্তরাঞ্চলের প্রায় 13 কিমি উত্তর-পূর্ব দিকে বিস্তৃত। এটি এই ধরনের বিশ্বের বৃহত্তম হিসেবে বিবেচিত।এই লাভা টিউব গুহা সারির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিক হল এর অক্ষত বৈশিষ্ট্য যা দেখে দর্শকরা এই অনন্য প্রাকৃতিক সৃষ্টির প্রশংসা করতে বাধ্য হয়। এই অঞ্চলের পরিদর্শনযোগ্য গুহাগুলি হল – মঞ্জংগুল, ইয়ংচিয়নগুল, জিমনিয়ংগুল এবং বেংডুইগুল গুহা।

সিউওংসান এলচলবং পিক –

100,000 বছরেরও অধিক পূর্বে সমুদ্রের নীচে একটি আগ্নেয় আন্দোলনের ফলে গঠিত সিউওংসান এলচলবং চূড়া জেজু দ্বীপের একটি প্রতীকচিহ্ন।এর উপরে 600 মিটার ব্যাসের একটি জ্বালামুখ রয়েছে যা ধারালো পাথর দ্বারা রেখাযুক্ত।দূরবর্তী স্থান থেকে এই জ্বালামুখটিকে একটি মুকুটের মত দেখায়।সিউওংসান এলচলবং চূড়ার আরেকটি আকর্ষণীয় বৈশিষ্ট হল এটির একপাশে পাথুরে পর্বত রয়েছে যা মনে হয় সমুদ্র থেকে উঠে এসেছে অন্য দিকটি সবুজ এবং একটি গ্রামের দিকে বর্ধিত হয়েছে।পর্বতের এই শ্যামল প্রান্তে দর্শকরা পায়ে হেঁটে ঘুরতে পারেন এবং অশ্বারোহণ উপভোগ করতে পারেন।

জেজু লাভ ল্যান্ড –

জেজু লাভ ল্যান্ড এই দ্বীপে এই ধরনের এক অন্যতম মিউজিয়াম। 39.667 বর্গ মিটার এলাকা জুড়ে অবস্থিত এই স্থানে 140টিরও বেশী ভাস্কর্য রয়েছে। এইগুলি একটি কৌশলী এবং রসাত্মক পদ্ধতিতে প্রেমমূলক ভাবকে প্রদর্শিত করে। এই থিম পার্কে শুধুমাত্র 20 বছর বয়সের ঊর্ধ্ব মানুষদের প্রবেশ অনুমতি আছে। এটি মধুচন্দ্রিমা উপভোগ করার জন্য নব দম্পতিদের একটি সেরা গন্তব্য যেখানে তারা পূর্ণপ্রকাশিত হতে পারে এবং একটি মজাদার সময় কাটাতে পারে।একটি গ্যালারি এবং প্রেমমূলক ভাস্কর্যের একটি উন্মুক্ত এলাকা ছাড়াও এই পার্কে একটি ক্যাফে এবং একটি রেস্তোরাঁ রয়েছে।

জেজুর করণীয়তা –

জেজু দ্বীপের ওরেয়াম –

ওরেয়াম হালাসান জুড়ে এক ছোট আগ্নেয় পর্বত যা ভৌগলিকগত ভাবে এই দ্বীপের ভূদৃশ্যকে সংজ্ঞায়িত করে।এটি শুধুমাত্র এই দ্বীপের সামগ্রিক দৃশ্যকে তুলে ধরে না বরং এই দ্বীপের সংস্কৃতিকেও সংজ্ঞায়িত করে।জেজুর 365-এরও অধিক ওরামের মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্যগুলি হল – দারাংসি, সায়েবিয়ল এবং ইয়ংনুনি

জেজু দ্বীপের মিউজিয়াম –

এখানকার কয়েকটি মিউজিয়াম পরিদর্শন না করলে জেজু দ্বীপের সফর অসম্পূর্ণ রয়ে যায়।এখানকার মধ্যে কিছু কিছু জেজু-দোর সংস্কৃতির এক ঝলক দেয় অন্যগুলি এককথায় চিত্তাকর্ষক এবং সমগ্র কোরিয়ার মধ্যে অত্যন্ত অনন্য।উদাহরণস্বরূপ একদিকে হায়েনিও মিউজিয়াম যা জেজু সমাজে মহিলাদের গুরুত্বকে তুলে ধরে অন্যদিকে রয়েছে টেডি বিয়ার মিউজিয়াম যেখানে, অসংখ্য আকার এবং আকৃতির টেডি বিয়ারকে তুলে ধরা হয়।জেজু লাভ ল্যান্ড আরেকটি আকর্ষণীয় মিউজিয়াম যেখানে মানবজাতির যৌনতাকে সুন্দর এবং মজাদার উপায়ে প্রদর্শন করা হয়।এখানকার অন্যান্য পরিদর্শনযোগ্য মিউজিয়াম গুলি হল - জেজু ফোক ভিলেজ মিউজিয়াম, ও’ সুলক মিউজিয়াম, এবং জেজু জাতীয় মিউজিয়াম।

জেজু দ্বীপের জলপ্রপাত, সমুদ্রসৈকত এবং পাহাড় –

উদ্বেলিত জলপ্রপাত থেকে দীর্ঘ প্রসারিত অক্ষত সমুদ্রসৈকত, চিত্তাকর্ষক আগ্নেয় শিলা এবং পাহাড় পর্যন্ত জেজু দ্বীপ অসংখ্য প্রাকৃতিক বিস্ময়ের আশীর্বাদপ্রাপ্ত।এগুলি আবার বহু কিংবদন্তীদের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত যা ভ্রমণকে আরো আকর্ষণীয় এবং স্মরণীয় করে তোলে।জেজু দোর বিখ্যাত জলপ্রপাতগুলি হল – চিয়নজিয়ং, জিয়ংব্যাং এবং চিয়নজায়াং জলপ্রপাত।আপনি সৈকত মৌসুমে এই দ্বীপ পরিদর্শন করলে হ্যামডিওক, জাংমান, হায়োপয়ে, এমেরাল্ড বে এবং পায়োসিয়ন দেখতে পাবেন।এখানকার পাথুরে পাহাড়ের মধ্যে জুসাংজিওলি ক্লিফ এবং ইয়ংডুয়াম অথবা ড্রাগন হেড রক হল উল্লেখযোগ্য।

জেজু দ্বীপ মানচিত্র

জেজু দ্বীপ সম্পর্কিত তথ্য –

  • জেজু দ্বীপ দক্ষিণ কোরিয়ার একমাত্র প্রধান স্বায়ত্তশাসিত প্রদেশ।
  • জেজু দ্বীপের অন্য আরেক নাম আছে, যেমন - সামদাদো দ্বীপ (যার অর্থ হল তিনটি প্রাচুর্যের দ্বীপ - নারী, পাহাড় ও বায়ু)।
  • দক্ষিণ কোরিয়ার মূল ভূখন্ড থেকে জেজুর বিচ্ছেদ ঘটার পর এই দ্বীপ তার নিজস্ব স্বতন্ত্র উপভাষা লাভ করে। কিছু পদ এখনও তাদের জেজু নাম দ্বারা পরিচিত, যেমন – ওরাম, হাঁটার পথ ওলে, গ্যালোট পোশাক, ব্যাংসতপ টাওয়ার এবং দোলারিয়ব্যাং পাথরের মূর্তি।
  • হালাসান পর্বত, জিওমিউনোরিয়াম লাভা টিউব এবং সিয়ংসান এলচুলবং পিক ইউনেস্কো দ্বারা বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান হিসাবে স্বীকৃতি পেয়েছে।

জেজু দ্বীপ কোথায় অবস্থিত?

জেজু দ্বীপ দক্ষিণ কোরিয়া উপদ্বীপের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে অবস্থিত।

ঠিকানা: জেজু-দো দক্ষিণ কোরিয়া

জেজু পৌঁছানোর উপায়?

জেজু শহরে একটি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর রয়েছে যেখানে দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক উভয় বিমানই উপলব্ধ। জেজু বিমানপথ দ্বারা বুসান, সিওল, ইনচেওন, এবং ছেওন্গ্জু-এর মত প্রধান কোরিয়ান শহর গুলির সাথে সুসংযুক্ত। জেজু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের অধিকাংশ বিমান সিওলের গিম্পো অন্তর্দেশীয় বিমানবন্দর থেকে আসে।এছাড়াও জেজুতে জাপান, চীন এবং তাইওয়ান থেকে বিমান আসে। বিমানসংস্থা পরিচালকরা জেজুতে কিছু এয়ারবাস সরবরাহ করে যেমন - জেজু এয়ার, কোরিয়ান এয়ার, এবং এশিয়ান এয়ারলায়ন্স।

জেজু দ্বীপ পৌঁছানোর আরো একটি মাধ্যম হল সমুদ্র দ্বারা ।মন্থর হলেও, জেজু বন্দরের ফেরি সল্পব্যায়ে একটি অসাধারণ যাত্রা প্রদান করার জন্যে বিবেচিত।মোকপো, বুসান, ইনচেওন এবং ওয়ান্দো বন্দরগুলি থেকে দৈনন্দিন ফেরি উপলব্ধ। যাত্রার সময় দূরত্বের উপর নির্ভর করে এবং নুন্যতম সময় 1 ঘন্টা 40 মিনিট হতে পারে (ওয়ান্দো থেকে) এবং সর্বোচ্চ সময় 12 ঘন্টা হতে পারে (বুসান থেকে)। যদিও সমুদ্র ভ্রমণ সমুদ্রের অবস্থার উপর অত্যন্তভাবে নির্ভরশীল।

জেজু দ্বীপের জলবায়ু –

সমুদ্রের উপক্রান্তীয় অবস্থান এবং নৈকট্যের কারণে জেজু দ্বীপের জলবায়ু নাতিশীতোষ্ণ মহাসাগরীয়।শীতকালীন ঋতুতে উষ্ণ স্রোত - কুরোশিও এবং সুশিমা জেজুর পার্বত্য অঞ্চলের তুলনায় উপকূলীয় এলাকার তাপমাত্রাকে উষ্ণতর করে তোলে। তাই, উচ্চ পার্বত্য অঞ্চলগুলি ছাড়া জেজুর অধিকাংশ অঞ্চল শীতকালে তুষারপাতের সম্মুখীন হয় না।বিপরীতভাবে, গ্রীষ্মের সময় শীতল মহাসাগরীয় স্রোত নাতিশীতোষ্ণ তাপমাত্রা নিয়ে আসে ফলে বৃষ্টিও ঘটে।

জেজু দ্বীপ পরিদর্শনের সেরা সময় –

জেজু দ্বীপ বছরের যে কোনো সময় পরিদর্শন করা যেতে পারে। যদিও গ্রীষ্মকালে কিছু বহিরঙ্গন কার্যকলাপ যেমন - জলক্রীড়া, সৈকতে রোদ পোহানো এবং পর্বতারোহণের সুযোগ থাকায় এই সময় বেশী পর্যটক দেখা যায়। তবে এই
মরসুমে সব কিছুরই মূল্য বেশী হয়।তাই আপনাকে এই সব কথা মাথায় রেখেই ভ্রমণ পরিকল্পনা করতে হবে।

জেজু দ্বীপ সম্পর্কিত বিস্তারিত তথ্যাবলী –

জেজু দ্বীপের স্থানাঙ্ক কি?
33.3667 ° N, 126.5333 ° E

জেজু দ্বীপের শহরের বিখ্যাত আকর্ষণ গুলি কি কি?
জেজু ফোকলোর অ্যান্ড ন্যাচারাল হিস্ট্রি মিউজিয়াম, সিওপজিকজি উপকূল, বিজারিম ফরেস্ট রোড, সামসিওনঘিওল, সোইসোকাক মোহনা, অয়ডলগি শিলা, জেজু স্কাল্পচার পার্ক, জেজু জিওলমুল ন্যাচারাল রিক্রিয়েশন ফরেস্ট, এবং জেজু মোকগোয়ানা।

* সর্বশেষ সংযোজন : November 19, 2015

Published On: Thursday, November 19th, 2015