Quantcast

রেইল্যে সৈকত, থাইল্যান্ড

রেইল্যে সৈকত, সাদা বালি ও পান্না-বর্ণের জলের চিত্রোনুপম ছবির ন্যায় নিখুঁত দৃশ্য রয়েছে

রেইল্যে বা রাই লেহ হল থাইল্যান্ডের ক্রাবি প্রদেশের একটি জনপ্রিয় সমু্দ্র-সৈকত। আন্দামান সমুদ্রের উপকূলে অবস্থিত রেইল্যে সৈকতে, সাদা বালি এবং পান্না-বর্ণের জলোচ্ছাসের চিত্রোনুপম ছবির ন্যায় নিখুঁত দৃশ্য বৈশিষ্ট্যযু্ক্ত রয়েছে। যে বৈশিষ্ট্য এই স্থানটিকে অন্যান্য সমু্দ্র-সৈকতগুলির তুলনায় আরোও মোহময় করে তুলেছে তা হল চুনাপথরের পর্বত গাত্র। এই অত্যুচ্চ ভূ-তাত্ত্বিক গঠনটি আরোহণ বা ক্ল্যাইম্বিং-এর জন্য পরিচিত।

আকর্ষণ

রেইল্যে সৈকতের দু’টি প্রধান অংশ রয়েছে - রেইল্যে পূর্ব এবং রেইল্যে পশ্চিম। রেইল্যে পূর্বটি, সূর্যোদয়ের সৈকত হিসাবেও পরিচিত, তবে বাস্তবিকভাবে এটি সৈকত নয়, এটি একটি জলাভূমি। এটিতে দৃশ্যত অত্যাশ্চর্য্য ম্যানগ্রোভ রয়েছে এবং এটি অধিকাংশ পর্যটকদের ক্ষেত্রে স্খলন কেন্দ্র। রেইল্যে পশ্চিম বা সূর্যাস্তের সৈকতটি, পূর্বদিকটির থেকে পুরোদস্তুর বৈষম্যপ্রদর্শন লক্ষিত হয়। এটিতে সাদা বালি, সাঁতার কাটার যোগ্য জল রয়েছে এবং সৈকতটিতে সারিবদ্ধভাবে পামজাতীয় বৃক্ষ রয়েছে, সুতরাং যা দেখতে পরিপূর্ণরূপে পোস্টকার্ড দৃশ্যের ন্যায় লাগে। এছাড়াও, রেইল্যের পারিপার্শ্বিক স্থানে অবস্থিত অন্যান্য আকর্ষণগুলির পরিদর্শনও খুবই অসাধারণ।

ফ্রা নাঙ্গ সৈকত : রেইল্যে উপদ্বীপের দক্ষিণ প্রান্তে অবস্থিত এই সৈকতটি, একজন রাজকুমারীর থেকে তার নামটি প্রাপ্ত, যিনি এখানে ডুবে গিয়েছেন বলে মনে করা হয়। স্থানীয় কিংবদন্তী অনুযায়ী, যারা তার পূজো করেন ও তার জননেন্দ্রিয় প্রস্তাবকারীদের আশীর্বাদ হিসাবে সে এখনও এই সমুদ্র-সৈকতে বেঁচে আছে। তার প্রতি উৎসর্গীকৃত একটি পবিত্র মঠ সৈকতটির উত্তর দিকে অবস্থিত। অন্যদিকে ফ্রা নাঙ্গ, শ্বেত বালুকা, প্রকান্ড দুরারোহ পর্বতগাত্র ও সবুজাভ জলোচ্ছাসের বৈশিষ্ট্যযুক্ত রয়েছে। চূড়ান্ত মরশুমে, এটি জণাকীর্ণ হয়ে ওঠে।

থাম ফ্রা নাঙ্গ নাই : চুনাপাথরের গুহার জন্য বিখ্যাত থাম ফ্রা নাঙ্গ নাই, পূর্ব রেইল্যে-এর নিকটে অবস্থিত। ইংরেজদের দ্বারা এই গুহাটি ‘ডায়মন্ড কেভ’ বা ‘হীরার গুহা’ নামে পরিচিত, পদব্রজে ভ্রমণ করতে প্রায় 10 থেকে 15 মিনিটের মতো সময় লাগে। চুনাপাথর গঠনটি পর্যবেক্ষণ করা খুবই অসাধারণ; যার মধ্যে আবার রয়েছে কোয়ার্টজ জলপ্রপাত যা সোনার ন্যায় চকমকে দেখায়। এই গুহাটি দর্শনের জন্য প্রবেশমূল্য লাগে।

সা ফ্রা নাঙ্গ : এটা হল রেইল্যে পূর্বের ঘন-বর্ষিত অরণ্যের মধ্যে লুকিয়ে থাকা একটি উপহ্রদ। জলা ও পার্বত্য ভূ-খন্ডের মধ্য দিয়ে তুলনামূলক কঠিন পদব্রজের মাধ্যমে এটিতে পৌঁছানো যেতে পারে। নিকটবর্তী দুরারোহ পর্বতগাত্রের চূড়াগুলি থেকে, বেশ কিছু ভূ-খন্ডের শ্রেষ্ঠ দৃশ্য পরিদর্শন এটিকে আরোও আগ্রহদীপ্ত করে তোলে।

রেইল্যে সৈকতের নিকটবর্তী আকর্ষণ

টোন সাই – রেইল্যে পশ্চিম থেকে একটি সন্নিধ্যতম পায়ে হাঁটা দূরত্বে রয়েছে টোন সাই, যা একটি সুন্দর অগভীর সমুদ্র সৈকত এবং মহৎ চুনাপাথরের দুরারোহ পর্বতগাত্রে আরোহণও খুবই সুন্দর। এখানে বিদ্যমান সস্তার হোটেল ও বিভিন্ন পর্বত আরোহণের প্রতিষ্ঠানের জন্য প্রসিদ্ধ। এই স্থানটি ব্যাকপ্যাকার ও সাশ্রয়ী ভ্রমণার্থীদের মধ্যে বেশ জনপ্রিয়।

শেল সমাধিক্ষেত্র – আও নাম মাও-এর এই সমাধিক্ষেত্রে 75 মিলিয়ন বছরের প্রাচীন গ্যাসট্রোপোড (শামূক) বা শূ-সান হোই-এর জীবাশ্ম খোলস রয়েছে। পরিদর্শনের সময় হল সকাল 8:30-টা. থেকে বিকেল 4:30-টা. পর্যন্ত এবং এখানে প্রবেশ মূল্য রয়েছে।

খাও খানাপ নাম – অত্যাশ্চর্য গুহার সঙ্গে দু’টি 328-ফুট উচ্চ পবর্তের একটু দূরেই একটি বোট রাইড রয়েছে। এখানে শুধুমাত্র আগ্রহদীপ্ত স্ট্যালাকটাইট-ই নেই বরঞ্চ মনে করা হয় যে এখানে খুঁটি গেড়ে বসতি স্থাপণ করে থাকার চেষ্টায় প্রাণ হারানো মানুষদের কঙ্কালের স্ট্যালাকটাইট কাঠামোও রয়েছে। গুহাটি পরিদর্শনের জন্য সকাল 8:30-টা. থেকে বিকেল 4:30-টা পর্যন্ত খোলা থাকে এবং এখানে প্রবেশের জন্য কোনও ধার্যমূল্য নেই।

ওয়াট থাম সেওয়া – টাইগার কেভ টেম্পল (ইংরাজীতে) হল একটি থাই থেরাভাদা বৌদ্ধ তীর্থকেন্দ্র স্থল, অরণ্য উপত্যকায় তার অবস্থান, সু-সজ্জিত মঠ এবং প্রভু বুদ্ধের সোনালী মূর্তির জন্য সুপ্রসিদ্ধ। তীর্থযাত্রীদের মন্দিরটিতে পৌঁছানোর জন্য 1,237-টি সিঁড়ি অতিক্রম করে উপরে উঠতে হয়। এটি ক্রাবি শহর থেকে প্রায় 5 মাইল দূরে অবস্থিত।

ক্রিয়াকলাপ

যারা রৌদ্রস্নান, সাঁতার ও সমুদ্রসৈকতের জীবন উপভোগ করতে ইচ্ছুক, তাদের জন্য রেইল্যে সৈকত হল একটি উপযুক্ত গন্তব্যস্থল। এছাড়াও সংযুক্তি হিসাবে, এখানে অন্যান্য আরোও কিছু কার্যক্রম রয়েছে, যেগুলি আপনি চরিতার্থ করতে পারেন।

রক ক্ল্যাইমবিং – চুনাপাথরের দুরারোহ পর্বতগাত্র বা খাড়াই পর্বত যা রেইল্যেকে মূল ভূখন্ড থেকে পৃথক করে রেখেছে, এটি রক ক্ল্যাইমবিং (পর্বতারোহণ)-এর জন্য এক অন্যতম শ্রেষ্ঠ স্থান হিসাবে বিবেচিত হয়। এখানে দুঃসাধ্য তারত্যমের স্তরের সঙ্গে 700-এরও বেশি রাস্তা রয়েছে। বেশ কিছু প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান ও আরোহণের সাজ সরঞ্জামের দোকানগুলি ভগ্ন-প্রস্তরপূর্ণ উচ্চতা আরোহণের সুযোগ প্রদান করে।

কায়াকিং – আন্দামান সাগরকে পরিবেষ্টন করে থাকা সৈকতটিতে বেশ কিছু ক্ষুদ্র দ্বীপপুঞ্জ, উপসাগর ও গুহা রয়েছে, যেগুলি চিত্তাকর্ষক স্থান ও সম্মিলিত উপকথা বহন করে চলেছে। একটি নৌকা ভাড়া করে রহস্যময় সুড়ঙ্গ, খন্দর ও হঙস-এর মধ্যে দিয়ে যাওয়া এক অসাধারণ অভিজ্ঞতা হতে পারে। এছাড়াও রেইল্যে সৈকতের নিকটবর্তী জনপ্রিয় স্থানের অন্বেষণের জন্য ক্রুজ উপলব্ধ রয়েছে।

স্নরকেলিং – রেইল্যে-র উপকূলবর্তী স্নোর্কেলিং হল অন্য আরেকটি জনপ্রিয় কার্যক্রম। পরিচালকেরা, দ্বীপের অন্বেষণ ও সমুদ্রে সর্বাধিক আনন্দ উপলব্ধির সমন্বিত প্রস্তাব প্রদান করে।

ট্রেকিং - রেইল্যে-র ক্রান্তীয় বনাঞ্চলটি হল বৈচিত্র্যময় সুন্দর পুষ্পশোভিত প্রজাতি, পাখি এবং পশুর আবাসস্থল। এগুলির সঙ্গে, জলবৎ গ্রামাঞ্চলে ভ্রমণ বেশ কিছু বিস্ময়কর অবস্থানের নেতৃত্ব দেয়; যেমন ডায়মন্ড কেভ, লেগুন ভিউ পয়েন্ট এবং ফ্রা নাঙ্গ উপসাগর।

বাসস্থানোপযোগী ব্যবস্থা

এখানকার জনপ্রিয়তার দরুণ অন্যান্য থাই সমুদ্রসৈকতগুলির তুলনায়, রেইল্যে-তে বাসস্থানোপযোগী স্থানের মূল্য বেশি, ঘটনা হল যে খাবার থেকে শুরু করে প্রতিটি জিনিষ নৌকার মাধ্যমে মানুষের কাছে সরবরাহ করা হয়। বিলাসবহুল সম্পদগুলিতে, চূড়ান্ত মরশুমে 10,000 ভাটেরও বেশি ব্যয় হতে পারে, অন্যদিকে বাজেটের বাসস্থানোপযোগী স্থানগুলির মূল্য যেকোনও জায়গায় মোটামুটি 500 ভাট থেকে 4000 ভাটের মধ্যে থাকে। মাঝারি-মানের হোটেলগুলি খুব একটা ভালো সুসজ্জিত নয়।

বাজেট ভ্রমণার্থীদের জন্য রেইল্যে ইষ্ট-এ, তৃণশ্যামল প্রকৃতির কোলে বাংলো থেকে শুরু করে জলাশয়-তীরবর্তী ও সমুদ্র-তীরবর্তী রিসর্টের বিভিন্ন বিকল্প উপলব্ধ রয়েছে। রাপালা রকউড রিসর্ট, সানরাইজ ট্রপিক্যাল রিসর্ট, প্রিন্সেস রিসর্ট আ্যন্ড স্পা এবং ফুতাওয়ান্ রিসর্ট হল উচ্চ মূল্যের বাসস্থানোপযোগী স্থান। অধিকাংশ সুপরিচিত শোভনীয় রিসর্ট ও বাংলো রেইল্যে ওয়েস্ট-এ অবস্থিত; যেমন ফ্রা নাং সৈকতে রায়াভাদে রিসর্ট, রেইল্যে ভিল্যেজ এবং রেইল্যে বীচ ক্লাব।

রেইল্যে সৈকত মানচিত্র

রেইল্যে সৈকত সম্পর্কে তথ্যাবলী

  • যদিও রেইল্যে মূল ভূ-খন্ডের একটি অংশ, তবুও এটি একটি দ্বীপের অনুভূতি প্রদান করে কারণ এখানে কেবলমাত্র বোট বা নৌকার মাধ্যমেই পৌঁছানো সম্ভব।
  • রেইল্যে সৈকত, রক ক্ল্যাইমবিং (পর্বতারোহণ)-এর জন্য সবচেয়ে প্রসিদ্ধ। চুনাপাথরের খাড়াই পর্বতগুলি, সমুদ্রের দ্বারা সু-পরিমার্জিত যা আরোহণের জন্য ভালো উপধান স্থল প্রদান করে।
  • ভাঁটার সময়, রেইল্যে উপদ্বীপে হেঁটেই যাওয়া যেতে পারে। এইভাবে রেইল্যের এক সংলগ্ন সৈকত টোন সাইতেও পৌঁছানো সম্ভব।

রেইল্যে সৈকত কোথায় অবস্থিত?

রেইল্যে সৈকত, সেইসমস্ত সমুদ্রসৈকতগুলির মধ্যে অন্যতম, যেখানে পৌঁছনোই রোমাঞ্চকর অনুভূতি। রেইল্যে উপদ্বীপের ওপর অবস্থিত সৈকতটি, পর্বতের উপস্হিতির কারণে মূল ভূখন্ড থেকে পৃথক রয়েছে। সেই কারণেই, এখানে সরাসরি কোনও সড়ক, রেল বা বিমান সংযোগ নেই। রেইল্যে সৈকতে পৌঁছানোর ক্ষেত্রে, জল মাধ্যমেই ভ্রমণ করা প্রয়োজন।

বিমান মাধ্যমে : রেইল্যে-র নিকটবর্তী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হল ব্যাংকক, যা সমগ্র বিশ্বের সাথে সুসংযুক্ত রয়েছে। ব্যাংকক থেকে ক্রাবি পৌঁছাতে আপনি বিমানের সুবিধা নিতে পারেন। বিদেশী পর্যটকরা তাদের নিজস্ব দেশ থেকে ক্রাবি পৌঁছানোর সরাসরি বা পরোক্ষ বিমানের খোঁজ করতে পারেন। ক্রাবি বিমানবন্দরে বেশ কিছু বিমান সংস্থা; যেমন থাই এয়ারওয়ে, এশিয়া এয়ার ও টাইগার এয়ারওয়ে বিমান পরিষেবা প্রদান করে।

ক্রাবি বিমানবন্দর থেকে ক্রাবি শহর (6.2 মাইল) বা আও নাঙ্গ (24.85 মাইল) পৌঁছানোর জন্য বাস ও ট্যাক্সি সহজলব্ধ রয়েছে। এই উভয় শহর থেকে রেইল্যে সৈকতে পৌঁছানোর জন্য সারা দিন ব্যাপী লম্বা-দৈর্ঘ্যের বোট বা নৌকাগুলি চলাচল করে।

জল মাধ্যমে : আও নাঙ্গ থেকে আপনি রেইল্যে সৈকতে পৌঁছাতে পারেন, যা কেবল 1.6 মাইলের দূরত্ব। লম্বা-দৈর্ঘ্যের বোট, হাট রেইল্যে ওয়েস্ট-এ পৌঁছাতে 15 মিনিট সময় নেয়। রেইল্যেতে পৌঁছানোর অন্য আরেকটি বিকল্প উপায় হল ক্রাবি টাউনের খোঙ্গ খা জেটি থেকে পৌঁছানো। জেটি থেকে হাট রেইল্যে ইষ্টের ভ্রমণে প্রায় 45 মিনিট সময় লাগে। যখন আবহাওয়া প্রতিকূল হয়ে ওঠে, নৌকাগুলি তখন শুধুমাত্র আও না মাও থেকে চলাচল করে, যা 15 মিনিটের দূরত্ব। পর্যটকরা রেইল্যে সৈকতে পৌঁছানোর জন্য ফুকেত, লান্তা ও ফি ফি থেকে ফেরীও নিতে পারেন।

রেইল্যে সৈকত পরিদর্শনের সেরা সময়

বিষুবরেখার নিকটে অবস্থানের দরুণ, রেইল্যে সৈকতে সাধারণত সারা বছর ব্যাপী উষ্ণ অনুভূত হয়। যদিও আন্দামান সাগর থেকে শীতল বায়ুর দরুণ উষ্ণতা এখানে অসহ্য হয়ে ওঠে না। তবুও তাপমাত্রা 82.4°F (ডিগ্রী ফারেনহাইট) এবং 89.6 °F (ডিগ্রী ফারেনহাইট)-এর মধ্যে থাকে। অন্যান্য মাসের তুলনায় মার্চ ও এপ্রিল মাস আরোও প্রখর উষ্ণ হয়ে ওঠে এবং তাপমাত্রা সর্বোচ্চ 98.6°F (ডিগ্রী ফারেনহাইট)-এ পৌঁছে যায়। সাধারণত জানুয়ারি মাসে বৃষ্টিপাত তাপমাত্রার পরিমাণকে বেশ কয়েক ডিগ্রী নীচে নামিয়ে আনে, যা প্রায় 75.2 °F (ডিগ্রী ফারেনহাইট)-এ নেমে আসে। মে থেকে অক্টোবর মাসের তুলনায় নভেম্বর থেকে এপ্রিলের মধ্যবর্তী সময়ে আবহাওয়া মনোরম ও শুষ্ক থাকে, যখন আরোও ঘন-ঘন বৃষ্টিপাত ঘটে তখন আর্দ্রতার মাত্রা আরোও বাড়তে থাকে। নভেম্বর থেকে এপ্রিল, চূড়ান্ত মরশুম বিপূল পর্যটকের ভিড় ও বর্ধিত দামের জন্যও সু-পরিচিত। সাশ্রয়ী ভ্রমণার্থীরা, মে থেকে অক্টোবর, অবনত মরশুমে পরিভ্রমণে আসতে পারেন এবং সমুদ্রসৈকতে আলস্যে কাটানোর পরিবর্তে রেইল্যে-র অন্যান্য ক্রিয়াকলাপগুলি উপভোগ করতে পারেন।

রেইল্যে সৈকতের উপর আরোও তথ্য

রেইল্যে সৈকতে একদিনের সফর হয়ে উঠতে পারে?

রেইল্যে সৈকতে একদিনের সফর সম্ভব। পর্যটকরা সাধারণত আও নাঙ্গ বা ক্রাবি শহরে তাদের ঘাঁটি করে সকালবেলায় একটি লম্বা-দৈর্ঘ্যের বোট নিয়ে রেইল্যে পৌঁছান। সকাল 7:30-টা. থেকে নৌকা বা বোট ছাড়তে শুরু করে। পরিদর্শনমূলক জনপ্রিয় স্থানগুলির মধ্যে রয়েছে ফ্রা নাঙ্গ সৈকত, ফ্রা নাঙ্গ মঠ, ডায়মন্ড গুহা এবং রেইল্যে ওয়েষ্ট। এখানে নিকটবর্তী বেশ কিছু রেস্তোঁরা ও বার রয়েছে। ফিরে আসার সময় সুবিধানুযায়ী হতে পারে। সন্ধ্যা 6:00-টা. পর্যন্ত নিয়মিত রূপে নৌকা পরিষেবা চালু থাকে। সন্ধ্যা 6:00-টার পর সেগুলি অতিরিক্ত মূল্য ধার্য করে।

রেইল্যেতে কি একা রক ক্ল্যাইম্বিং করা যেতে পারে?

রেইল্যেতে দুরারোহ পর্বতগাত্র বা খাড়া পর্বতগুলি সবজায়গায় সমান নয়। কয়েকটি রাস্তা অত্যন্ত শ্রমসাধ্য এবং বিপজ্জনক। একা আরোহণের ক্ষেত্রে স্থানীয়দের কাছ থেকে যথেষ্ট তথ্য নিয়ে নেওয়াটাই শ্রেয়।

রেইল্যে পরিদর্শনে যাওয়ার সময় কি কি জিনিস মনে রাখা উচিৎ?

  • রেইল্যে খুবই ব্যয়বহুল। সুতরাং যথেষ্ট অর্থ বহন করুন বা জিনিসপত্রের বেশী দাম পরিশোধ এড়ানোর জন্য আপনি সঙ্গে জোগান রাখুন।
  • অধিকাংশ রেস্তোঁরাগুলি সাধারণত থাই খাবার পরিবেশন করে। খাদ্যপ্রিয় ব্যাক্তি ও ভোজন রসিকদের এগুলির বদলে থাইল্যান্ডের অন্যান্য সমুদ্র-সৈকতগুলিতে ঘুরে আসা উচিৎ।
  • উষ্ণ বর্হিগমন অনুভবের আশা রাখতে পারেন। সঙ্গে জল বহন করুন এবং রৌদ্রের তাপ থেকে সুরক্ষার জন্য আরামদায়ক জুতো, টুপি ও চশমা (সানগ্লাস) পরুন।
  • রক ক্ল্যাইম্বিং (পর্বতারোহণ)-এর সময়, আপনার সাজ-সরঞ্জাম নিরাপদ ও বিপদমুক্ত কিনা, তা নিশ্চিত করুন। দুর্ঘটনা ঘটার আগে অবহিত করে না।
  • দালাল ও স্মারণিক বিক্রেতারা সমুদ্রসৈকতের সর্বত্র ঘুরে বেড়ায়। সাশ্রয়ী ভ্রমণার্থীরা তাদের কেনাকাটা করার জন্য ক্রাবি টাউন বা আও নাঙ্গ-এ পৌঁছানো অবধি অপেক্ষা করতে পারেন।

* সর্বশেষ সংযোজন : October 07, 2015

Published On: Wednesday, October 7th, 2015