Quantcast

কায়রো, মিশর

কায়রো হল মিশরের এক বৃহত্তম শহর

কায়রো-কে প্রাচীনত্ব এবং আধুনিক মিশরের আমূল ভান্ডার হিসাবে বর্ণনা করা যেতে পারে। তার আধুনিক অবকাঠামোর সঙ্গে অতীতের মিনারগুলির এক নিখুঁত মিশ্রণ। কায়রোর মাধ্যমে যাত্রা বাস্তবিকভাবেই এক সময় সাপেক্ষ যাত্রা। কায়রোতে প্রস্তাবনার প্রচুর কিছু রয়েছে, যা এই শহর অনুসন্ধানে সপ্তাহও কাটিয়ে দিতে পারেন। “এক হাজার মিনারের শহর” হিসাবে পরিচিত কায়রো- ফ্যারাও, গ্রীক, ব্যাবিলয়ন এবং রোমানদের আবাসস্থল হয়ে রয়েছে, যারা এই শহরের উপর তাদের অসাধারণ ছাপ রেখে গেছে।

কায়রোয় পরিদর্শনযোগ্য স্থান

গিজার মিরামিড : বিশ্বের সবচেয়ে স্বীকৃত ল্যান্ডমার্ক - গিজার পিরামিড পরিদর্শন ব্যতীত মিশর ভ্রমণ অসম্পূর্ণ থেকে যাবে। শত-শত পর্যটক তার মহিমা এবং অপরিমেয় আকারের একটি আভাস পেতে প্রতিদিন এটির পরিদর্শনে আসে। স্পিংক্স (গ্রীক পুরাণে উল্লিখিত নারীর মুখ ও সিংহের দেহবিশিষ্ট ডানাওয়ালা দানবের মূ্র্তি) দ্বারা সুরক্ষিত, গিজার মিরামিড হল পরাক্রমশালী ফ্যারাও – কূফু, কাফরে ও মেনকৌরের সাথে সাথে রাজ পরিবার, আভিজাত্য এবং পুরোহিতদের সমাধি। এই তিনটির মধ্যে, কূফুর মহীয়ান পিরামিডটি হল প্রাচীন বিশ্বের সপ্তাশ্চর্যের একটি অংশ এবং এটিই একমাত্র এখনও দাঁড়িয়ে রয়েছে। কালপুরুষের নক্ষত্রপুঞ্জের সাথে সংযুক্ত, পিরামিডগুলি প্রাচীন বিশ্বের সপ্তাশ্চর্যের শেষ অবস্থা অবলম্বন করে টিকে রয়েছে।

মিশরীয় মিউজিয়াম : প্রাচীন মিশরীয় হস্তনির্মিত সামগ্রীর বিশ্বের আদ্য ভান্ডারের আবাসস্থল, এই বর্তমান মিশরীয় মিউজিয়াম 1900 সালে মরু-মালভূমি-শৈলীর স্বচ্ছ সদর ও মহীয়ান সোপান সাথে নবধ্রুপদী শৈলীতে নির্মিত হয়েছিল, যা কালানুক্রমে পিরামিড ভবনটি – কায়রোকে প্রাচীনত্বের সময়কাল থেকে আধুনিকতায় দর্শকদের সামনে তুলে এনেছে। মিশরীয় ফ্যারাওদের সংস্কৃতির একটি মহাকোষ, মিউজিয়ামটি তার প্রদর্শিত পুরাকীর্তির নিছক সংখ্যার জন্য বিখ্যাত। পর্যটকদের মধ্যে সবচেয়ে প্রসিদ্ধ এবং জনপ্রিয় হল তুতেনখামেন-এর সমাধি ভান্ডার। মিশরীয় হস্তনির্মিত সামগ্রীকে সরিয়ে রেখেও, এখানে বেশ কিছু চিত্র-প্রদর্শনী রয়েছে যার পরিসীমা হল প্রাগৈতিহাসিক যুগ থেকে গ্রেকো-রোমান সময়; যেমন চিত্তাকর্ষক রাজকীয় মমির প্রদর্শনী।

মেমফিশ : ফেরাও মেনেস দ্বারা প্রবর্তিত মেমফিশ, একটি শহরের চেয়ে অনেক বেশি দূর্গের মতো দেখতে ছিল। তবে, শহরের বেশিরভাগই গ্রাম, মাঠ ও নীল নদের পলি জুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে ধ্বংসাবশেষের মধ্যে আচ্ছাদিত রয়েছে। শহরের অবশিষ্টাংশের অধিকাংশই মিৎ রহিনা গ্রামের চারপাশে কেন্দ্রীভূত রয়েছে। এখানে, পর্যটকেরা পতাহ মন্দিরের ধ্বংসস্তূপ ও সেই সঙ্গে বেশ কয়েকটি ক্ষুদ্রকায় মঠ ও অভয়ারণ্য সহ দ্বিতীয় রামাশেসের দুটি বৃহৎ মূ্র্তি দেখতে পেতে পারেন। এছাড়াও, এখানে তৈলস্ফটিক স্ফিংক্সও রয়েছে, যা একজন অজানা ফ্যারাও-এর প্রতি উৎসর্গীকৃত।

দূর্গ : বরাবরই ইসলামী কায়রোর কেন্দ্র রূপে অভিহিত কায়রোর দুর্গটি, মহম্মদ আলী দ্বারা 1176 এবং 1183 খ্রীষ্টাব্দের মধ্যবর্তী সময়ে নির্মিত হয়েছিল, যিনি আযুবিদ শাসক সালাহ আল-দীনের একজন প্রতিনিধি ছিলেন। ক্রুসেডারদের বিরুদ্ধে সুরক্ষা প্রদানে কায়রোর দুর্গটি একটি রাজকীয় বাসভবন ও সেইসঙ্গে সামরিক ঘাঁটি হিসাবে পরিষেবিত হত। তার বিদ্যমান মিনারগুলির মধ্যে আল-নাসির মহম্মদের হাইপোস্টাইল মসজিদটি হল একটি ভিড়-আকর্ষণকারী অবয়ব। সুতরাং সুল্যেমান পাশার মসজিদ ও মহম্মদ আলী আল-কবির মসজিদগুলি হল ষোড়শ শতকের। এটি আল-গাওহারা প্যালেস ও সেইসাথে বিভিন্ন মসজিদ, সমাধি, পান্থশালা, মাদ্রাসা এবং বৃহৎ অট্টালিকা সমন্বিত।

সাক্কারা : সাক্কারা হল একটি সমাধি ক্ষেত্র যেখানে মেমফিস থেকে এবং অনেক ফ্যারাওদের পরিষদবর্গকে সমাহিত করা হয়েছিল। প্রচুর পিরামিডের আবাসস্থল, সবচেয়ে প্রসিদ্ধ ও সবচেয়ে দৃষ্টিনন্দন হল জোসার স্টেপ পিরামিড, যা হল মিশরের সবচেয়ে প্রাচীনতম পিরামিড। প্রাচীন রাজত্ব সমাধি বা ওল্ড কিংডম টম্ব-এর চিত্রগুলি প্রাচীন মিশরীয়দের জীবনের বিকাশের অর্ন্তদৃষ্টির প্রস্তাব দেয়। সাক্কারা-র অন্যান্য আকর্ষণীয় স্থানগুলির মধ্যে রয়েছে আ্যপিস বুলসের সমাধি এবং চমৎকার কারুশিল্পের খোদাইকার্য, যা টেটির পিরামিডের কাছে কবরস্থানে দেখা যেতে পারে।

কপটিক মিউজিয়াম : কপটিক মনুমেন্টগুলি একদিকে ফ্যারাওনিক এবং গ্রেকো-রোমান যুগের সময়কালীন প্রাচীন মিশরীয় এবং অন্যদিকে ইসলামিক শিল্পকর্মের সংযোগ হিসাবে বিবেচিত হয়। বিশ্বের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কপটিক শিল্পের উদাহরণ স্বরূপ, কপটিক মিউজিয়াম 1910 সালে এই মনুমেন্টগুলির প্রদর্শনে এবং সহজেই মিশরে খ্রীষ্টানদের ইতিহাসকে অনুসন্ধানের জন্য মার্কাস সমাইকা পাশার দ্বারা প্রবর্তিত হয়েছিল। 8000 বর্গ মিটার এলাকা জুড়ে বিস্তৃত মিউজিয়ামটিতে 16,000-এরও বেশি হস্তনির্মিত দ্রব্য-সামগ্রী রয়েছে, যা কালানুক্রমিকভাবে 12-টি বিভিন্ন বিভাগকে সুনিশ্চিত করার জন্য সুসজ্জিত করা হয, যাতে পর্যটকেরা অতি সহজেই প্রদর্শনীগুলি বুঝতে পারেন।

খান ঈল-খালিলি : একটি অতি প্রাচীন বাজার খান ঈল-খালিলি হল একটি উন্মুক্ত-আকশের নীচে বিপণিস্থল (সৌক), যা 1385 সালে নির্মিত হয়েছিল, যখন আমির জারকাস ঈল-খালিলি এক বৃহৎ পান্থশালা নির্মাণ করেন। এই বিপণিস্থলটি সূলতান আল-ঘূরির দ্বারা ভূমিস্মাৎ করে দেওয়া হয় এবং পরবর্তীকালে ষোড়শ শতকে এটিকে পুনঃর্নির্মিত করা হয়েছিল। ইসলামীয় ও তুরস্কীয় মোটিফ (শিল্প ও সাহিত্যের বিশেষত সংগীতের মূল উপাদান বা প্রধান প্রসঙ্গিত নকশায়িত প্রতীকি); যেমন মামলুক-শৈলীতে সুসজ্জিত প্রবেশদ্বারগুলি যথাযোগ্যভাবে সে যুগের মানুষের কারিগরিতাকে প্রদর্শিত করে। ক্রেতাদের জন্য স্বর্গোদ্যান, এই বিপণিস্থলটি হল শিলারুপ মূর্তি, সৌখিন জিনিষপত্র, রূপোর গহনা এবং বেল্যী নৃত্যের পরিধানসমূহের নিদারুণ ভান্ডার, আপনি এখানে মশলাজাত দ্রব্যও কিনতে পারেন।

কায়রো-তে হোটেল

বার্লিন হোটেল এবং বেল্লা লূনা হল সাশ্রয়ী মূল্যের অসাধারণ বাসস্থানোপযোগী থাকার ব্যবস্থা। মাঝারি-মানের ভ্রমণার্থীদের জন্য পিরামিডস ভিউ ইন্ এবং গোল্ডেন হোটেল হল অসাধারণ।বিলাসবহুল ভ্রমণার্থীরা কেম্পিনস্কি নীল হোটেল কায়রো এবং শোফিটেল কায়রো ঈল গেজিরাহ-তে গিয়ে দেখতে পারেন।

কায়রো মানচিত্র

কায়রো সম্পর্কে তথ্যাবলী

  • কায়রো হল আফ্রিকা ও মধ্য-প্রাচ্যের সবচেয়ে বৃহত্তম শহর।
  • কায়রো “এক হাজার মিনারের শহর” হিসাবেও পরিচিত রয়েছে।
  • কায়রোর আরবীয় নাম হল “আল্ কাহিরাহ”, যার অর্থ হল বিজেতা।

কায়রো কোথায় অবস্থিত?

কায়রো, মিশরের উত্তরে নীল নদের ব-দ্বীপের ওপর অবস্থিত।

পৌঁছানোর উপায়?

বিমান মাধ্যমে

কায়রো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হল শহরের মূখ্য বিমানবন্দর এবং এটি শহরের কেন্দ্র বা সিটি সেন্টার থেকে প্রায় 22 কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। বিমানবন্দর পর্যন্ত গাড়ির মাধ্যমে যেতে আধ ঘন্টার চেয়ে একটু বেশি সময় লাগে।

রেল মাধ্যমে

কায়রোর রামশেস স্টেশন হল শহরের প্রধান রেলওয়ে স্টেশন।

সড়ক মাধ্যমে

কায়রো মিশরের রাজধানী হওয়ায়, এটি সড়ক মাধ্যমে দেশের সকল অংশের সাথে সু-সংযুক্ত রয়েছে।

কায়রো পরিদর্শনের সেরা সময়

এই শহর পরিদর্শনে যাওয়ার সেরা সময় হল মার্চ থেকে এপ্রিল এবং অক্টোবর থেকে নভেম্বর। এই সময়ে, তাপমাত্রা বেশ কিছুটা মনোরম থাকে এবং ভিড়ও কিছুটা কম থাকে।

কায়রো সম্পর্কিত আরোও তথ্যাবলী

কায়রোতে কি কি ভাষায় কথা বলে?

মিশরে আধিকারিক কথ্য ভাষা হল মিশরীয় আরবিক। তবে, কায়রোতে অনেক মানুষ ইংরাজী ভাষাতেও কথা বলে।

কায়রোতে কি ধরনের জলবায়ু অনুভূত হয়?

গ্রীষ্মের সময়, তাপমাত্রা সাধারণত 40 ° সেলসিয়াসের নীচে থাকে এবং শীতকালে তাপমাত্রা 30 ° সেলসিয়াসের নীচে থাকে। বৃষ্টিপাত সাধরণত বিরল বা বিক্ষিপ্তভাবে হতে দেখা যায়, কিন্তু নীল নদ এবং ভূমধ্যসাগরের নৈকট্যতার দরুণ আর্দ্রতা বেশ উচ্চ থাকে।

* সর্বশেষ সংযোজন : December 15, 2015

Published On: Tuesday, December 15th, 2015