Quantcast

আ্যকোয়ারিয়া কে.এল.সি.সি, মালয়েশিয়া

মালয়েশিয়ায়, অ্যাকোয়ারিয়া কে.এল.সি.সি-তে সামুদ্রিক জীবের একটি প্রদর্শনী

কুয়ালালামপুরের আ্যকোয়ারিয়া কে.এল.সি.সি-র কাঁচের দেওয়ালের মধ্য দিয়ে সামুদ্রিক রাজত্বের স্বপ্নসম প্রাণীদের দেখে নিজেকে অন্য জগতে দ্বীপান্তরের অনুভূতি নিন। আ্যকোয়ারিয়ামটি, 90 মিটার দীর্ঘ সর্বদিগ্ব্যাপী আচ্ছাদিত ট্যাংক সহ সারা পৃথিবীর সামুদ্রিক জীবন প্রদর্শনীতে, সিডনি আ্যকোরিয়ামকেও ছাপিয়ে গেছে। এছাড়াও এটিতে এক ঘূর্ণায়মান ট্র্যাভেলেটর রয়েছে; যেখানে আপনি জলের মধ্যে ভ্রমণ করে সামুদ্রিক জীবগুলির দর্শনের আনন্দ উপভোগ করতে পারেন। সময়ের প্রেক্ষাপটিত ব্যাখ্যায় এই জীবগুলির জীবনের নিদর্শন এবং কিভাবে তারা অভিব্যক্ত আছে তার অন্তর্দৃষ্টি প্রদান করে। আ্যকোয়ারিয়া কে.এল.সি.সি-র সবচেয়ে এক অন্যতম আবশ্যিক দর্শনীয় ক্রিয়াকলাপ হল সামু্দ্রিক প্রাণীদের খাওয়ানো। খাওয়ানোর সময় দেখতে বিশেষ করে পিরানহা (দক্ষিণ আমেরিকার নদীর হিংস্র মৎস্যবিশেষ)-দের, আধিকারিক ওয়েবসাইট যাচাই করে দেখুন।

আ্যকোয়ারিয়া কে.এল.সি.সি-র প্রধান বৈশিষ্ট্য

দর্শকদের বিভিন্ন ভৌগোলিক অঞ্চলে যাত্রার অভিজ্ঞতা প্রদান করতে অ্যাকোয়ারিয়ামটিকে বিভিন্ন বিভাগে বিভক্ত করা হয়েছে :

  • রকি শোর টাচ্ পুল - বক্স ক্র্যাব, কালো বর্ণের সী কুকুম্বার, ধূসর-বর্ণের হর্সসু ক্র্যাব, চকোলেট চিপ সী স্টার ও ব্র্যাউনব্যান্ডেড ব্যাম্বু শার্ক প্রদর্শিত করায়।
  • ইলেকট্রিক জোন - নিশাচর বৈদ্যুতিক মাগুর মাছ (নকটারনাল ইলেকট্রিক ক্যাট ফিশ্), বিপজ্জনক বৈদ্যুতিক পাঁকাল মাছ (ডেঞ্জারাস ইলেকট্রিক ঈল) ও পীসফুল এলিফ্যান্ট নোশ ফিশ্ ইত্যাদি প্রদর্শিত হয়। কর্মচারীরা ইলেকট্রিক ঈলদের খাওয়ানোর ক্ষেত্রে আঘাতের সম্ভাবনা থেকে বাঁচতে প্লাস্টিকের খাদ্যদণ্ড ব্যবহার করেন
  • মালয়েশীয় ফ্লাডেড ফরেস্ট - (মালয়েশিয়ার প্লাবিত বন) অনেক কিছুর প্রদর্শন করায়; যার মধ্যে রয়েছে বালা শার্ক (অসাধারণ লাফায় ও সাঁতার কাটে), ক্যান্টোর’স জ্যায়ান্ট সফটসেল্ টার্টেল (ক্যান্টোরের দৈত্যাকার নরম খোলসযুক্ত কচ্ছপ), মালয়েশীয় রেড মাহশির, জ্যায়ান্ট গৌরামি, হেলিকপ্টার ক্যাটফিশ্ (তাপাহ), ম্যাড বার্ব, মোটোরো স্টিংরে, টাইগার সোরুবীম, ওয়াকিং ক্যাটফিশ্ ইত্যাদি।
  • স্ট্রিম বিভাগে বন্ধুত্বপূর্ণ এশীয় ছোট নখযুক্ত ওটার (উদ্বিড়াল) এবং সাঁতারে সুপটু – নিউট্রিয়া ওয়্যাটার র‍্যাট রয়েছে।
  • আমাজন ফ্লাডেড ফরেস্ট - এখানে বেশ কিছু বিপন্ন প্রজাতি আছে; যেমন আ্যল্যিগেটার গারফিশ্, আরাপাইমা নামে অভিহিত প্রাচীনতম সতেজ জলের মাছ, আমাজন অরণ্যের একমাত্র নিরামিশাষী মাছ – ব্ল্যাক পাকূ, সবচেয়ে এক বৃহত্তম ক্যাটফিশ্ – রেডটেল ক্যাটফিশ্ ও সুন্দর সিলভার আ্যরোওয়ানা।
  • উইয়ার্ড আ্যন্ড ওয়ান্ডারফুল হল এক দৃষ্টিগোচর বিভাগ; এখানে পরিদর্শনের মধ্যে রয়েছে স্পটেড গার্ডেন ঈল, পট বেল্যিড সীহর্স, মুন জেল্যীস, ক্রোকোডাইল ফিশ্ ও চ্যাম্বার্ড নৌটিলাস।
  • দ্য কোস্ট আ্যন্ড ওসেনারিয়াম-এ বিভিন্ন আকর্ষণীয় সামুদ্রিক প্রাণী আছে। এছাড়াও আপনি কৃত্রিম গ্লাস বটম্ বোটের উপর একটি সফরের আনন্দ নিতেও পছন্দ করবেন।

অ্যাকোয়ারিয়ামটি কর্পোরেট এবং ব্যক্তিগত কার্যক্রমের জন্যও অবকাশের প্রস্তাব দেয়। কেজ রেজ্ কার্যক্রমের সাথে শার্ক বা হাঙ্গরের সান্নিধ্যতম দর্শন উপলব্ধি করুন। এমনকি অ্যাকোয়ারিয়ামটিতে আপনি শার্ক বা হাঙ্গরের সঙ্গে শোয়া বা ঝাঁপ দিতেও পারেন। এক অপরিমোচনীয় স্মৃতির জন্য অ্যাকোয়ারিয়ামে আপনি আপনার জন্মদিনের পার্টি দিতে পারেন অথবা সুন্দর সামুদ্রিক জীবের প্রেক্ষাপটে, জলের নীচে আপনার অভিপ্রায়ও আপনার বান্ধবীর কাছে প্রস্তাবিত করতে পারেন।

অ্যাকোয়ারিয়ামের কর্মীরা খুবই বন্ধুত্বপূর্ণ এবং ভাল সহযোগী। অসংখ্য প্রদর্শনীর সঙ্গে দর্শকদের জন্য আলাপচারিতার বৈশিষ্ট্য এবং সুযোগ-সুবিধার একটি মহান বন্দোবস্ত রয়েছে। কুয়ালালামপুরের সবচেয়ে শীর্ষস্থানীয় পর্যটন গন্তব্যস্থলগুলির মধ্যে আ্যকোয়ারিয়া কে.এল.সি.সি এক অন্যতম হয়ে উঠেছে।

আ্যকোয়ারিয়া কে.এল.সি.সি. মানচিত্র

আ্যকোয়ারিয়া কে.এল.সি.সি সম্পর্কে তথ্যাবলী

  • আ্যকোয়ারিয়া কে.এল.সি.সি, 5,000-এরও বেশি জলজ এবং স্থলজ উভয় জীবের প্রদর্শনী স্থল।
  • এটি 2005 সালের 20-শে আগস্ট স্থাপিত ও উন্মুক্ত হয়।
  • আ্যকোয়ারিয়া কে.এল.সি.সি প্রকল্পটি হল সম্পূর্ণরূপে আ্যকোয়াওয়াক্ এস.ডি.এন বি.এইচ.ডি বিভাগের মালিকানাধীন।
  • নিউজিল্যান্ড ভিত্তিক মেরিনস্কেপ লিমিটেড বিশ্বমানের অ্যাকোয়ারিয়ামটির নকশায়িত করেন।
  • অ্যাকোয়ারিয়ামটি 60,000 বর্গ ফুট স্থানের উপর ব্যাপ্ত রয়েছে।
  • আ্যকোয়ারিয়া কে.এল.সি.সি, সম্প্রতি কুয়ালালামপুর মেয়র’স পর্যটন পুরস্কার 2014 (প্ল্যাটিনাম আ্যওয়ার্ড – পর্যটন আকর্ষণ বিভাগ) অর্জন করেছে।

আ্যকোয়ারিয়া কে.এল.সি.সি কোথায় অবস্থিত?

কুয়ালালামপুরের “গোল্ডেন ট্র্যাইঙ্গেল” বা “স্বর্ণালী ত্রিভূজ”-এর কেন্দ্রে এবং পেট্রোনাস টুইন টাওয়ার থেকে এক হাঁটা পথের দূরত্বে আ্যকোয়ারিয়া কে.এল.সি.সি অবস্থিত। এটি কুয়ালালামপুর আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে প্রায় 59.2 কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। আপনি এখানে বাস, লাইট র‍্যাপিড ট্র্যানজিট (এল.আর.টি.), মনোরেল বা ট্যাক্সি/গাড়ির মাধ্যমেও পৌঁছাতে পারেন।

ঠিকানা : কুয়ালালামপুর কনভেনশন্ সেন্টার কমপ্লেক্স, জালান পিনাঙ্গ, 50088, কুয়ালা লামপুর, মালয়েশিয়া।

আ্যকোয়ারিয়া কে.এল.সি.সি পরিদর্শনের সেরা সময়

এপ্রিল এবং সেপ্টেম্বর থেকে নভেম্বরের মাসগুলি আপনার কুয়ালালামপুর পরিদর্শনে যাওয়া এড়িয়ে চলা উচিৎ। অধিকাংশ মানুষই ফেব্রুয়ারী মাসে মালয়েশিয়া পরিদর্শনে যান, কারণ এই সময় এখানে থাইপুশম উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। আপনি আপনার আ্যকোয়ারিয়া কে.এল.সি.সি-র সফর সেই অনুযায়ী পরিকল্পনা করতে পারেন।

আ্যকোয়ারিয়া কে.এল.সি.সি দর্শনের সময়

আ্যকোয়ারিয়ামটি প্রতিদিনই সকাল 10:30-টা. থেকে রাত 8:00-টা. পর্যন্ত উন্মুক্ত থাকে।

আ্যকোয়ারিয়া কে.এল.সি.সি টিকিট

প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য প্রবেশের টিকিটের মূল্য হল আর.এম. 50 (RM 50)। একজন শিশুর প্রবেশমূল্য হল আর.এম. 40 (RM 40)। অন্যদিকে একজন বরিষ্ঠ নাগরিক (60 বছর ও তার উর্ধ্বে)-দের জন্য প্রবেশমূল্য হল আর.এম. 30 (RM 30)।

আ্যকোয়ারিয়া কে.এল.সি.সি সম্পর্কিত আরোও তথ্য

  • আ্যকোয়ারিয়া কে.এল.সি.সি-র স্থানাঙ্ক কি কি?
    3.154292, 101.713529.
  • কুয়ালালামপুর শহরের বিখ্যাত আকর্ষণগুলি কি কি?
    পেট্রোনাস টাওয়ার, পেরডানা বোটানিক্যাল গার্ডেন, বুকিত বিনতাং, কুয়ালালামপুর টাওয়ার, বাটু কেভস, কুয়ালালামপুর পক্ষী উদ্যান ও থিয়ান হৌউ মন্দির।
  • আ্যকোয়ারিয়া কে.এল.সি.সি-র নিকটবর্তী থাকার সবচেয়ে ভালো হোটেল কি কি?
    গ্র্যান্ড হায়াত কুয়ালালামপুর হোটেল, ইম্পিয়ানা কে.এল.সি.সি হোটেল, আ্যসকট কুয়ালালামপুর হোটেল, হোটেল নোভোটেল কুয়ালালামপুর সিটি সেন্টার এবং শাঙ্গরি-লা দ্বারা ট্রেডার’স হোটেল।


* সর্বশেষ সংযোজন : September 10, 2015

Published On: Thursday, September 10th, 2015