Quantcast

নাজকা লাইনস, পেরু

পেরুর নাজকা লাইনের বহু চিত্রের মধ্যে এক অন্যতম হল কোন্ডোর।

নাজকা লাইনস গবেষকদের জন্য একটি রহস্য, দর্শকদের জন্য একটি বিস্ময়কর সৌন্দর্য এবং ঐতিহাসিকদের জন্য এক উৎসাহী প্রতিদ্বন্দ্বিতা। দক্ষিণ আমেরিকার প্রাক হিস্পানিকদের পেরুভিয় অঞ্চলের নাজকার পৌরাণিক রেখাগুলিতে বিপুল বানর থেকে দৈত্য মাকড়সার চিত্র রয়েছে। প্রকৃতি, আকার, গণনা এবং যুগ: এই রেখাগুলি সম্পর্কে সবকিছুই এখনো অস্পষ্ট। এই রেখা গুলির মাধ্যমে চিত্রিত বিভিন্ন রকমের নকশা, প্রথাগত উদ্ভিদ, কাল্পনিক মানুষ এবং বিভিন্ন জ্যামিতিক পরিসংখ্যান একটি রহস্যের আহ্বান করে।

ইতিহাস –

"নাজকা রেখাগুলি কে বা কারা সৃষ্টি করেছেন?" এই প্রশ্নের উত্তর 2,000 বছর পরেও মেলেনি। তাদের সম্পর্কে অনেক অনুমানজনক তত্ত্বের বিকাশ ঘটেছে। এই রেখাচিত্রগুলিকে কালানুক্রমিক পর্যায় অনুযায়ী তিন ভাগে ভাগ করা হয়:

  • প্রথম পর্যায়টি হল চ্যাভিন কাল (500-300 খ্রিস্টপূর্ব) । এই সময়কাল পাইল পাথর ব্যবহার করে ব্যাক্তির চিত্র গঠনের প্রত্যক্ষদর্শী।
  • দ্বিতীয় পর্যায়টিকে পারাকাস বলে চিহ্নিত করা, স্থানীয় উন্নয়ন 400 খ্রিস্টপূর্বাব্দ এবং 200 খ্রিস্টপূর্বাব্দের
    মধ্যে ঘটেছে বলে বিশ্বাস করা হয়।
  • অধিকাংশ রেখাচিত্র তৃতীয় সময়সীমার (200 খ্রিস্টপূর্বাব্দ থেকে 500খ্রিস্টাব্দ) অন্তর্গত।এই সময়কালটিকেই মূল নাজকা পর্যায় বলা হয়।

এক বিমানচালক 1939 সালে এই অঞ্চলের উপর দিয়ে বিমান নিয়ে যাওয়ার সময় সর্বপ্রথম এই নাজকা রেখাচিত্র গুলিকে চিহ্নিত করেন।

নিকটবর্তী আকর্ষণ –

মারিয়া রেইখ মিউজিয়াম – এটি জার্মান গণিতবিদ ও নাজকা লাইনের গবেষক মারিয়া রেইখের বাসভবন।1998 সালে তার মৃত্যুর পর এই বাড়িটিকে একটি ছোট মিউজিয়ামে রুপান্তরিত করা হয়।এটি কার প্যানামেরিকা সুর বরাবর মিরাডোরের প্রায় 5 কিমি উত্তরে অবস্থিত। দর্শনার্থীরা এই মিউজিয়ামে মারিয়া রেইখের জীবনের একটি ছোট ঝলক দেখতে পেতে পারেন।

পম্পাস গ্যালেরাস ন্যাশনাল রিজার্ভ – এটি একটি ভিকুনা অভয়ারণ্য এবং এই নাজকা রেখাচিত্রের প্রায় 90 কিলোমিটার পূর্বে কাজকো সড়কের উপর পাহাড়ে অবস্থিত এক জাতীয় সংরক্ষণ। দুর্বোধ্য এবং লাজুক প্রাণী ভিকুনা খুব সহজেই এখানে দেখা যায়। এখানে তিন দিন ব্যাপী একটি বার্ষিক উৎসব আয়োজিত হয় যেখানে শত শত গ্রামবাসী, ভিকুনাদের গা থেকে লোম ছাঁটার মাধ্যমে এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহন করে।

চউচিয়া সেমেট্রি – এটিকে জনপ্রিয় ভাবে 'পেরুর গোরস্থান' হিসেবে অভিহিত করা হয়, এটি একটি কবরস্থান যেখানে নাজকা সম্প্রদায়ের মমিতে পরিণত করা দেহাবশেষ এবং কাদা ইঁটের সমাধি রয়েছে।এটি 1920 সালে আবিষ্কৃত হয়।চউচিয়া সমাধিক্ষেত্রের কবরগুলি 200 খ্রিস্টাব্দের অন্তর্গত।এই স্থান নাজকা রেখাচিত্র থেকে 30কিমি দূরে অবস্থিত।

প্যাল্পা রেখাচিত্র – প্যাল্পা রেখাসমূহ নাজকা রেখাসমূহের চেয়েও পুরনো বলে মনে করা হয় কারণ প্রত্নতত্ত্ববিদরা বলেছেন যে প্রায় 3,000 বছর পূর্বে এই রেখা গুলি আঁকা হয়েছে। এখানেও নাজকা রেখাচিত্রের ন্যায় সুবিপুল মানব চিত্রের রেখা রয়েছে।

নাজকা লাইনস মানচিত্র

নাজকা রেখাসমূহ পেরুর শুষ্ক উপকূলীয় সমভূমি র মধ্যে অবস্থিত । পেরুর জাতীয় রাজধানী লিমা থেকে এই স্থান 421 কিমি দূরে অবস্থিত।এই রেখাগুলি মরুভূমি এবং নিম্ন আন্দিজ পর্বতের পাদদেশ পর্যন্ত প্রসারিত।

পৌঁছানোর উপায় –

বিমান পথ দ্বারা – এই প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান সান জুয়ান বিমানবন্দর থেকে প্রায় 81 কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। অন্যদিকে রাজধানী লিমা নাজকা রেখাচিত্রের সর্ব নিকটবর্তী প্রধান শহর, লিমার জর্জ শ্যাভেজ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এই বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান থেকে 570 কিমি দূরে অবস্থিত।

সড়কপথ দ্বারা – নাজকার রেখাচিত্র গুলি পেরুর কিছু বৃহত্তম শহর গুলির সাথে সড়কপথ দ্বারা সংযুক্ত। লিমা থেকে গাড়ী বা বাস দ্বারা আট ঘন্টার দীর্ঘ ড্রাইভের মাধ্যমে পর্যটকরা এই স্থানে পৌঁছতে পারেন।

বাসস্থান ব্যবস্থা –

নাজকার মত একটি মরুভূমিতে কোনো বিলাসবহুল বাসস্থান খুঁজে পাওয়া স্বভাবতই কঠিন, তবুও এই অঞ্চলে কিছু মাঝারী রকমের হোটেল পাওয়া যায়। হোটেল কাসা হ্যাসিয়েন্দা নাজকা ওয়েসিস, হোটেল কাসা অ্যান্দিনা ক্লাসিক, হোটেল মাজোরো, হোটেল অ্যালেগ্রীয়া, এবং হোটেল লা মাইসন সুইসে হল নাজকায় উপলব্ধ কিছু সেরা হোটেল।

রেস্তোরাঁ –

নাজকার মামাশানা ক্যাফে রেঁস্তোরা তার জাপানি কুইজিন, পিজা, স্যান্ডউইচ, এবং কফির জন্য বিখ্যাত।এই অঞ্চলের আরেকটি জনপ্রিয় রেস্তোরাঁ রিকো পোলো বিভিন্ন চিকেন ডিশ এবং পিজা পরিবেশন করে।লা মাইসন ব্ল্যাঞ্চ একটি রেস্তোরাঁ তথা বার এবং সেইসাথে কফিও পরিবেশন করে।

নাজকা রেখাচিত্র পরিদর্শনের সেরা সময় -

এই অঞ্চলে সারা বছর ধরে একটি মনোরম জলবায়ু থাকে। নাজকা রেখাচিত্র পরিদর্শনের সেরা সময় হল একদম ভোর বেলা যখন বাতাস শান্ত থাকে।

নাজকা রেখাচিত্র সম্পর্কিত তথ্যাবলী –

  • এই রেখাসমূহ 500 খ্রিস্টপূর্বাব্দ ও 500 খ্রিস্টাব্দের মধ্যে ভূপৃষ্ঠের উপর খোদাইকৃত করা হয়েছিল।
  • এগুলি 75.358 হেক্টর এলাকা জুড়ে আবৃত।
  • প্রচলিত বিশ্বাস যে পেরুর নাজকা রেখাচিত্রগুলি বিমান থেকে দৃশ্যমান – যা একটি কাল্পনিক কথা।
  • এটা বিশ্বাস করা হয় যে এখানে 800 টিরও বেশি সোজা রেখা রয়েছে, 300টি জ্যামিতিক পরিসংখ্যান এবং 70টি প্রাণী এবং উদ্ভিদের নকশা রয়েছে।
  • বৃহত্তম চিত্রটি প্রায় 200 মিটার এলাকা জুড়ে বিস্তৃত এবং দীর্ঘতম চিত্রটি প্রায় নয় মাইল এলাকা জুড়ে বিস্তৃত।
  • এই রেখাচিত্র গুলি লৌহ এবং নুড়ির সমৃদ্ধ বালি দ্বারা আবৃত, যেগুলি আবহাওয়ার তারতম্যের কারণে একটি গাঢ় আবরণ লাভ করেছে।
  • অনেক গবেষকরা বলেছেন যে অধিকাংশ রেখা প্রাক্তন রেখা গুলির উপরে নতুন করে চিত্রিত করা।
  • নাজকা রেখাচিত্রগুলি 1994 সালে ইউনেস্কো দ্বারা বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থানে পরিণত হয়।
  • দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর মারিয়া রেইখ নামক একজন জার্মান শিক্ষক এই রেখাগুলির প্রথম আনুষ্ঠানিক তদন্ত করেন।

* সর্বশেষ সংযোজন : November 30, 2015

Published On: Monday, November 30th, 2015